পাতা:ঘুসখোরি বুদ্ধি.pdf/১৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

ঘুসখোরি বুদ্ধি।

১৩


দারোগা। তাহা মনে করিবেন না, আমরা যদি মধ্যস্থ হই, তাহা হইলে সে সুযোগ কাহারও ঘটিবে না।
কর্ম্মচারী। কেন?
দারোগা। কেন, তাহা যদি জানিতে চাহেন, তাহা আমি আপনাকে বলিতেছি। আমার যে কয়েকজন লোক আছে, তাহাদিগকে লইয়া আমি সেই বিবাদ স্থানে গিয়া পূর্ব্বেই উপস্থিত হইব, এবং সেইস্থানেই দিবারাত্রি অতিবাহিত করিব। আপনাদিগের কোন পক্ষকেই আমরা সেইস্থানে গমন করিতে দিব না, জমির ধান্য যেরূপ অবস্থায় আছে, সেইরূপ অবস্থায় রাখিয়া দিব; কাহাকেও কাটিতে দিব না। যদি বুঝিতে পারি, ফসল নষ্ট হইয়া যাইতেছে, তাহা হইলে সরকারী খরচে ধান কাটাই ও মাড়াই করিয়া রাখিয়া দিব; বিচারালয়ে সেই জমির গোলোযোগ মিটিয়া গেলে, সেই জমি যিনি পাইবেন, সেই আমানতি ধান্যও তাঁহার হইবে। আপনাদিগের মধ্যে কোন পক্ষ, ধান্য ক্রোক করিবার নিমিত্ত সেই স্থানে গমন করিলে, আমরা প্রথমতঃ তাঁহাকে সেই স্থান হইতে প্রস্থান করিবার নিমিত্ত আদেশ প্রদান করিব। ইহাতে যদি তিনি আমাদিগের কথায় কর্ণপাত না করিয়া, ধান্য কর্ত্তন করিতে প্রবৃত্ত হন, তাহা হইলে আমরা তাঁহর বিপক্ষে দণ্ডায়মান হইব, তাহাতেও যদি তিনি আমাদিগের আদেশ লঙ্ঘন করিয়া আমাদিগের সহিত দাঙ্গা করিতে আরম্ভ করেন, তাহা হইলে তিনি রাজবিদ্রোহীরূপে পরিগণিত হইবেন। পরিশেষে তাঁহার অবস্থা যাহা হইবে তাহা স্বচক্ষেই দেখিতে পাইবেন।
কর্ম্মচারী। তাহা হইলে আপনারা কোন পক্ষকেও সেই ধান্য কাটিতে দিবেন না?