পাতা:চতুরঙ্গ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ՀԵ চতুরঙ্গ করিতে হরিমোহনের কিছুমাত্র বিলম্ব বা দ্বিধা হইল না । বিষম উত্তেজনার সঙ্গে সে কথা তিনি সর্বত্র রটাইয়া বেড়াইতে লাগিলেন । , এই অন্যায় নিন্দ কিছুমাত্র কমে সেজন্য জগমোহন কোনো চেষ্টাই করিলেন না । তিনি বলিলেন, “আমাদের নাস্তিকের ধর্মশাস্ত্রে ভালো কাজের জন্ত নিন্দার নরকভোগ বিধান ।” জনশ্রীতি যতই নূতন নূতন রঙে নুতন নূতন রূপ ধরিতে লাগিল শচীশকে লইয়া ততই তিনি উচ্চহাস্তে আনন্দসম্ভোগ করিতে লাগিলেন। এমন কুৎসিত ব্যাপার লইয়া নিজের ভাইপোর সঙ্গে এমন কাণ্ড করা হরিমোহন বা র্তার মতো অন্য কোনো ভদ্রশ্রেণীর লোক কোনোদিন শোনেন নাই । জগমোহন বাড়ির যে অংশে থাকেন, ভাগ হওয়ার পর হইতে পুরন্দর তার ছায়া মাড়ায় নাই। সে প্রতিজ্ঞা করিল, মেয়েটাকে পাড়া হইতে তাড়াইবে তবে অন্য কথা । জগমোহন যখন ইস্কুলে যাইতেন তখন তার বাড়ির মধ্যে প্রবেশ করিবার সকল রাস্তাই বেশ ভালো করিয়া বন্ধসন্ধ করিয়া যাইতেন এবং যখন একটুমাত্র ছুটির সুবিধা পাইতেন একবার করিয়া দেখিয়া যাইতে ছাড়িতেন না । একদিন দুপুরবেলায় পুরন্দর নিজেদের দিকের ছাদের পাচিলের উপরে মই লাগাইয়া জগমোহনের অংশে লাফ দিয়া পড়িল । তখন আহারের পর ননিবালা তার ঘরে শুইয়া ঘুমাইতেছিল ; দরজা খোলাই ছিল । পুরন্দর ঘরে ঢুকিয়া নিদ্রিত ননিকে দেখিয়া বিস্ময়ে এবং রাগে