পাতা:চতুরঙ্গ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ੋਂ ፀግ বিহবলতা জাগাইয়া রাখিতে প্রাণপণে চেষ্টা করিতে লাগিলাম । ক্ষণে ক্ষণে মনে হইতে লাগিল, আমি তুর্বল, আমি অপরাধ করিতেছি, আমার সাধনার জোর নাই। শচীশের দিকে তাকাইয়া দেখি, কলিকাতা শহরটা যে স্থনিয়ার ভূবৃত্তান্তে কোনো-একটা জায়গায় আছে এমন চিহ্নই তার মুখে নাই ; তার কাছে এ সমস্তই ছায়া । وق\ শিবতোষের বাড়িতে গুরুর সঙ্গেই একত্র আমরা দুই বন্ধু বাস করিতে লাগিলাম। আমরাই তার প্রধান শিষ্য, তিনি আমাদিগকে কাছছাড়া করিতে চাহিলেন না । গুরুকে লইয়া, গুরুভাইদের লইয়া, দিনরাত রসের ও রসতত্ত্বের আলোচনা চলিল । সেই-সব গভীর তুর্গম কথার মাঝখানে হঠাৎ এক-একবার ভিতরের মহল হইতে একটি মেয়ের গলার উচ্চহাসি আসিয়া পৌছিত । কখনো কখনো শুনিতে পাইতাম একটি উচ্চস্বরের ডাক— “বামি” । আমরা ভাবের যে আসমানে মনটাকে বুদ করিয়া দিয়াছিলাম তার কাছে এগুলি অতি তুচ্ছ ; কিন্তু হঠাৎ মনে হইত, অনাবৃষ্টির মধ্যে যেন ঝরার করিয়া এক পসলা বৃষ্টি হইয়া গেল। আমাদের দেয়ালের পাশের অদৃশ্যলোক হইতে ফুলের ছিন্ন পাপড়ির মতো জীবনের ছোটো ছোটো পরিচয় যখন আমাদিগকে স্পর্শ করিয়া যাইত তখন আমি মুহূর্তের মধ্যে বুঝিতাম, রসের লোক তো ঐখানেই– যেখানে সেই বামির আঁচলে ঘরকল্পার