পাতা:চতুরঙ্গ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শচীশ & A So শচীশের ডায়ারিতে লেখা আছে : গুহার মধ্যে অনেকগুলি কামরা। আমি তার মধ্যে একটাতে কম্বল পাতিয়া শুইলাম । সেই গুহার অন্ধকারটা যেন একটা কালে জন্তুর মতো–তার ভিজা নিশ্বাস যেন আমার গায়ে লাগিতেছে। অামার মনে হইল, সে যেন আদিমকালের প্রথম স্মৃষ্টির প্রথম জন্তু ; তার চোখ নাই, কান নাই, কেবল তার মস্ত একটা ক্ষুধা আছে ; সে অনন্তকাল এই গুহার মধ্যে বন্দী ; তার মন নাই— সে কিছুই জানে না, কেবল তার ব্যথা আছে, সে নিঃশব্দে কাদে । ক্লাস্তি একটা ভারের মতো আমার সমস্ত শরীরকে চাপিয়া ধরিল, কিন্তু কোনোমতেই ঘুম আসিল না। একটা কী পাখি, ভিতরে ঝপ, বাপ, ডানার শব্দ করিতে করিতে অন্ধকার হইতে অন্ধকারে চলিয়া গেল । আমার গায়ে তার হাওয়া দিতে সমস্ত গায়ে কাটা দিয়া উঠিল । মনে করিলাম, বাহিরে গিয়া শুইব । কোন দিকে যে গুহার দ্বার তা ভুলিয়া গেছি। গুড়ি মারিয়া এক দিকে চলিতে চেষ্টা করিয়া মাথা ঠেকিয় গেল, আর-এক দিকে মাথা ঠুকিলাম, আরএক দিকে একটা ছোটো গর্তের মধ্যে পড়িলাম— সেখানে গুহার ফাটল-র্চোওয়ানো জল জমিয়া আছে । শেষে ফিরিয়া আসিয়া কম্বলটার উপর শুইলাম। মনে হইল,