পাতা:চতুরঙ্গ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


शांशिनी * ՎoՊ লোকসান ছিল না, এমন-কি, বেজির ক্ষুধানিবৃত্তির ভার স্বয়ং বেজির পরে রাখিলে জীবে দয়ার অত্যস্ত ব্যত্যয় হইত না অথচ নামে রুচির পরিচয় দিতে পারিতাম। তাই হঠাৎ শচীশকে দেখিয়া অপ্রস্তুত হইতে হইল। ভাড়টা সেইখানে রাখিয়া আত্মমর্যাদ উদ্ধারের পস্থায় সরিয়া যাইবার চেষ্টা করিলাম । কিন্তু, আশ্চর্য দামিনীর ব্যবহার। সে একটুও কুষ্ঠিত হইল না ; বলিল, “কোথায় যান শ্ৰীবিলাসবাবু ?” আমি মাথা চুলকাইয়া বলিলাম, “একবার—” দামিনী বলিল, “উহাদের গান এতক্ষণে শেষ হইয়া গেছে। আপনি বসুন-না।” শচীশের সামনে দামিনীর এইপ্রকার অনুরোধে আমার কান ফুটে বর্ণ বা করিতে লাগিল । দামিনী কহিল, “বেজিটাকে লইয়া মুশকিল হইয়াছে— কাল রাত্রে পাড়ার মুসলমানদের বাড়ি হইতে ও একটা মুরগি চুরি করিয়া খাইয়াছে। উহাকে ছাড়া রাখিলে চলিবে না । ঐবিলাসবাবুকে বলিয়াছি একটা বড়ো দেখিয়া ঝুড়ি কিনিয়া আনিতে, উহাকে চাপা দিয়া রাখিতে হইবে।” বেজিকে দুধ খাওয়ানে, বেজির ঝুড়ি কিনিয়া আনা প্রভৃতি উপলক্ষে শ্ৰীবিলাসবাবুর আনুগত্যটা শচীশের কাছে দামিনী যেন একটু উৎসাহ করিয়াই প্রচার করিল। যেদিন গুরুজি আমার সামনে শচীশকে তামাক সাজিতে বলিয়াছিলেন সেই দিনের কথাটা মনে পড়িল । জিনিসটা একই ।