পাতা:চতুরঙ্গ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দামিনী Ե, 3 ছানাটার অনাচারে গুরুজি বিরক্ত বলিয়া সেটাকে দামিনী বিলাইয়া দিয়াছে । এইরূপে আমি বেকার ও সঙ্গীহীন হইয়া পড়াতে পুনশ্চ গুরুজির দরবারে পূর্বের মতে ভর্তি হইলাম, যদিচ সেখানকার সমস্ত কথাবার্তা গানবাজনা আমার কাছে একেবারে বিশ্রী রকমের বিস্বাদ হইয়া গিয়াছিল। وا\ একদিন শচীশ কল্পনার খোলা ভাটিতে পূর্ব ও পশ্চিমের— অতীতের ও বর্তমানের সমস্ত দর্শন ও বিজ্ঞান, রস ও তত্ত্ব একত্র চোলাইয়া একটা অপূর্ব আরক বানাইতেছিল, এমন সময়ে হঠাৎ দামিনী ছুটিয়া আসিয়া বলিল, “ওগো, তোমরা একবার শীঘ্র এসো।” আমি তাড়াতাড়ি উঠিয়া বলিলাম, “কী হইয়াছে।” দামিনী কহিল, “নবীনের স্ত্রী বোধ হয় বিষ খাইয়াছে।” নবীন আমাদের গুরুজির একজন চেলার আত্মীয়, আমাদের প্রতিবেশী, সে আমাদের কীর্তনের দলের একজন গায়ক । গিয়া দেখিলাম, তার স্ত্রী তখন মরিয়া গেছে । খবর লইয়া জানিলাম, নবীনের স্ত্রী তার মাতৃহীন বোনকে নিজের কাছে আনিয়া রাখিয়াছিল । ইহারা কুলীন, উপযুক্ত পাত্র পাওয়া দায় । মেয়েটিকে দেখিতে ভালো । নবীনের ছোটো ভাই তাকে বিবাহ করিবে বলিয়া পছন্দ করিয়াছে । সে কলিকাতায় কালেজে পড়ে ; আর কয়েকমাস পরে পরীক্ষা দিয়া আগামী আষাঢ় মাসে সে বিবাহ করিবে, এইরকম কথা । এমন সময়ে নবীনের স্ত্রীর پر مه سوره: ، به نام