পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


○や চয়নিকা রজনী গভীর হোলো, দীপ নিবে আসে ; পদ্মার মৃদুর পারে পশ্চিম আকাশে কখন-যে সায়াহ্নের শেষ স্বর্ণ-রেখা মিলাইয়া গেছে, সপ্তর্ষি দিয়েছে দেখা তিমিরগগনে, শেষ ঘট 素 ক’রে কখন বালিক বধু চলে গেছে ঘরে । হেরি' কৃষ্ণপক্ষ রাত্রি একাদশী তিথি দীঘপথ, শূন্তক্ষেত্র, হয়েছে অতিথি গ্রামে গৃহস্থের ঘরে পাস্তু পরবাসী,— কখন গিয়েছে থেমে কলরবরাশি মাঠপারে, কৃষি-পল্লী হতে নদীতীরে বৃদ্ধ কষাণের জীর্ণ নিভৃত কুটীরে কখন জলিয়াছিল সন্ধ্যা-দীপখানি, কখন নিভিয়া গেছে—কিছুই না জানি । কী কথা বলিতেছিহু কী জানি, প্রেয়সী, অধ-অচেতনভাবে মনোমাঝে পশি' . স্বপ্নমুগ্ধমতো । কেহ শুনেছিলে সে কি, কিছু বুঝেছিলে, প্রিয়ে, কোথাও আছে কি কোনো অর্থ তার । সৰ কথা গেছি ভুলে’, শুধু এই নিদ্রাপূর্ণ নিশীথের কুলে । অস্তরের অন্তহীন অশ্র-পারাবার উদ্বেলিয়া উঠিয়াছে হৃদয়ে আমার গভীর নিঃস্বনে । এসো স্বপ্তি, এসে। শাস্তি, এসো প্রিয়ে, মুগ্ধ মৌন সকরুণ কাস্তি, বক্ষে মোরে লহ টানি’,—শোয়াও যতনে মরণ-স্বস্কিন্ধ শুভ্র বিস্মৃতি-শয়নে । ( ৪ পৌষ, ১২৯৯ )। o, —সোনার তরী