পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छब्रनेिका প'ড়ে আছে শিকড় অঁাকড়ি ; হিম-রেখ। নীল গিরিশ্ৰেণী-পরে দূরে ষায় দেখা দৃষ্টিরোধ করি’ যেন নিশ্চল নিষেধ উঠিয়াছে সারি সারি স্বর্গ করি’ ভেদ যোগমগ্র ধূর্জটির তপোবন-দ্বারে । মনে মনে ভ্ৰমিয়াছি দূর সিন্ধুপারে মহামেরু দেশে—যেপানে লয়েছে ধরা অনন্ত কুমারীব্রত, হিমবস্ত্রপর, নিঃসঙ্গ, নিস্পৃহ, সব আভরণহীন ; যেথা দীর্ঘ রাত্রি-শেষে ফিরে আসে দিন শব্দশূন্য সংগীতবিহীন । রাত্রি আসে, ঘুমাবার কেহ নাই, অনন্ত আকাশে অনিমেষ জেগে থাকে নিদ্রাতগ্রহিত শূন্তশয্যা মুতপুত্র জননীর মতো । নুতন দেশের নাম যত পাঠ করি, বিচিত্র বর্ণনা শুনি, চিত্ত অগ্রসরি’ সমস্ত স্পশিতে চাহে ; সমুদ্রের তটে ছোট ছোট নীলবর্ণ পবতসংকটে একখানি গ্রাম, তীরে শুকাইছে জাল, জলে ভাসিতেছে তরী, উড়িতেছে পাল, জেলে ধরিতেছে মাছ, গিরিমধ্যপথে ংকীর্ণ নদীটি চলি আসে কোনোমতে আঁকিয়া বাকিয়া ; ইচ্ছা করে সে নিভৃত গিরিক্রোড়ে মুখাসীন উর্মিমুখরিত লোকনীড়খানি, হৃদয়ে বেষ্টিয়া ধরি বাছপাশে । ইচ্ছা করে, আপনার করি S •S