পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চয়নিক স্বগ হইতে বিদায় মান হয়ে এল কণ্ঠে মন্দারমালিকা, হে মহেন্দ্র, নির্বাপিত জ্যোতিময় টিকা মলিন ললাটে ;-–পুণ্যবল হোলো ক্ষীণ, আজি মোর স্বৰ্গ হতে বিদায়ের দিন, হে দেব হে দেবীগণ । বর্ষ লক্ষশত যাপন করেছি হর্ষে দেবতার মতো দেবলোকে । আজি শেষ বিচ্ছেদের ক্ষণে লেশমাত্র অশ্রুরেখা স্বগের নয়নে দেখে যাব এই আশা ছিল । শোক হীন হৃদিহীন মুখস্বৰ্গভূমি উদাসীন চেয়ে আছে সদা ; লক্ষ লক্ষ বর্ষ তার চক্ষের পলক নহে ;– আশ্বখ-শাখার প্রান্ত হতে পসি গেলে জীর্ণতম পাতা যতটুকু বাজে তার, ততটুকু ব্যথ। স্বগে নাহি লাগে, যত মোরা শতশত গৃহ চু্যত হতজ্যোতি নক্ষত্রের মতে। মুহূর্তে খসিয়া পড়ি দেবলোক হতে ধরিত্রীর অন্তহীন জন্মমৃতু্য-ম্রোতে । সে-বেদন৷ বাজিত যদ্যপি, বিরহের ছায়ারেখা দিত দেখা, তবে স্বরগের চিরজ্যোতি স্নান হোত মর্ত্যের মতন কোমল শিশিরবাম্পে —নন্দনকানন মমরিয়া উঠিত নিঃশ্বসি’, মন্দাকিনী কুলে কুলে গেয়ে ষেত করুণ কাহিনী । >○○