পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চয়নিক o, 는o업 শুনিয়া তখনি করতালি দিয়া হেসে উঠে নরনারী — যে যাহারে চায় ধরিয়া তাহায় দাড়াইল সারি সারি। “হয়েছে প্রমাণ, হয়েছে প্রমাণ” হাসিয়া সবাই কহে— “যে কথা রটেছে একটি বর্ণ বানানো কাহারো নহে ।” বাহুতে বাস্থতে বাধিয়া কহিল নয়নে নয়নে চাহি’— “আকাশে পাতালে মরতে আজি তো গোপন কিছুই নাহি ।” কহিল হাসিয়া মালা হাতে লয়ে পাশাপাশি কাছাকাছি, “ত্রিভুবন যদি ধরা পড়ি গেল তুমি আমি কোথা আছি।” হায় কবি হায়, সে হতে প্রকৃতি হয়ে গেছে সাবধানী,— মাথাটি ঘেরিয়া বুকের উপরে আঁচল দিয়েছে টানি । যত ছলে আজ যত ঘুরে মরি জগতের পিছু পিছু কোনোদিন কোনো গোপন খবর নূতন মেলে না কিছু । শুধু গুঞ্জনে কৃজনে গন্ধে সন্দেহ হয় মনে লুকানো কথার হাওয়া বহে যেন বন হতে উপবনে ; মনে হয় যেন আলোতে ছায়াতে রয়েছে কী ভাব ভরা,— হায় কবি হায়, হাতে হাতে আর কিছুই পড়ে না ধরা ॥ ( ১৩০৪ ? ) —কল্পনা । অশেষ আবার আহবান ? যত কিছু ছিল কাজ, সাঙ্গ তে করেছি আজ দীর্ঘ দিনমান ॥ জাগায়ে মাধবীবন চলে গেছে বস্তৃক্ষণ প্রত্যুষ নবীন,