পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চয়নিক নিঃশব্দ প্রখর ছায়ামূর্তি তব অল্পচর ॥ দীপ্তচক্ষু হে শীর্ণ সন্ন্যাসী, পদ্মাসনে বসে অাসি’ রক্তনের তুলিয়া ললাটে, শুষ্ক জল নদীতীরে শস্যশূন্য তুষাদীর্ণ মাঠে উদাসী প্রবাসী, দীপ্তচক্ষু হে শীর্ণ সন্ন্যাসী ॥ জলিতেছে সম্মুগে তোমার লোলুপ চিতাগ্নি-শিখা, লেক্তি’ লেন্তি’ বিরাট অম্বর, নিপিলের পরিত্যক্ত মুতস্ত,প বিগত বংসর করি’ ভস্মসার চিতা জলে সম্মুখে তোমার ॥ হে বৈরাগী করো শাস্তিপাঠ । উদার উদাস কণ্ঠ যাক ছুটে দক্ষিণে ও বামে, যাক নদী পার হয়ে, যাক চলি’ গ্রাম হতে গ্রামে পূর্ণ করি’ মাঠ । হে বৈরাগী করে। শাস্তিপীঠ ॥ সকরুণ তব মন্ত্রসাথে মৰ্মভেদী যত দুঃপ বিস্তারিয়া যাক বিশ্ব-’পরে, ক্লাস্ত কপোতের কণ্ঠে, ক্ষীণ জাহ্নবীর শ্রান্ত স্ববে, অশ্বথ-ছায়াতে, সকরুণ তব মন্ত্রসাথে । & 〉?