পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२२२ চয়নিক চলিল সন্ন্যাসী ত্যজিয়া নগর ছিন্ন চৗরখানি লয়ে শিরোপর, সপিতে বুদ্ধের চরণ-নখর অালোকে | ( ৫ কাতিক, ১৩১৪ ) —কথা । দেবতার গ্রাস গ্রামে গ্রামে সেই বার্তা রটি গেল ক্রমে মৈত্র মহাশয় যাবে সাগর-সংগমে তীর্থস্নান লাগি । সঙ্গীদল গেল জুটি কত বাল বৃদ্ধ নর নারী, নৌকা দুটি প্রস্তুত হইল ঘাটে । পুণ্যলোভাতুর মোক্ষদা কহিল আসি, “হে দাদাঠাকুর, আমি তব হব সার্থী ।” বিধবা যুবতী, দুখানি করুণ আঁখি মানে না যুকতি, কেবল মিনতি করে,—অনুরোধ তার এড়ানে। কঠিন বড় —“স্থান কোথা আর,” মৈত্র কহিলেন তারে । “পায়ে ধরি তব” বিধবা কহিল কাদি, “স্থান করি’ লব কোনোমতে একধারে ।” ভিজে গেল মন, তবু দ্বিধাভরে তারে শুধাল ব্রাহ্মণ, “নাবালক ছেলেটির কী করিবে তবে ।” উত্তর করিলা নারী—“রাখাল ? সে র’বে