পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৩৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


వరీ 8 চয়নিক ' ' ”—জলখ নিরঞ্জন“ =ף মহারব উঠে বন্ধন টুটে করে ভয়-ভঞ্জন । বক্ষের পাশে ঘন উল্লাসে আসি বাজে ঝঞ্চন । পাঞ্জাব আজি গরজি উঠিল—“অলপ নিরঞ্জন ॥* এসেছে সে একদিন লক্ষ পরানে শঙ্কা না জানে না রাখে কাহারো ঋণ । জীবন মৃত্যু পায়ের ভৃত্য, চিত্ত ভাবনাহীন । পঞ্চ নদীর ঘিরি’ দশ তীর এসেছে সে এক দিন ॥ দিল্লি-প্রাসাদ-কুটে হোথা বারবার বাদশাজাদার তন্দ্রা যেতেছে ছুটে । কাদের কণ্ঠে গগন মন্থে, নিবিড় নিশীথ টুটে, কাদের মশালে আকাশের ভালে আগুন উঠেছে ফুটে । পঞ্চ নদীর তীরে ভক্ত দেহের রক্তলহরী মুক্ত হইল কি রে । লক্ষ বক্ষ চিরে’ ঝণকে ঝণকে প্রাণ পক্ষীসমান ছুটে যেন নিজ নীড়ে । বীরগণ জননীরে . . . রক্ত-তিলক ললাটে পরাল পঞ্চ নদীর তীরে । মোগল শিখের রণে মরণ-আলিঙ্গনে কণ্ঠ পাকড়ি’ ধরিল আঁকড়ি’ দুই জনা দুই জনে, দংশন-ক্ষত শ্বেনবিহঙ্গ যুঝে ভুজঙ্গ সনে । সেদিন কঠিন রণে “জয় গুরুজীর” ইণকে শিখবীর সুগভীর নিঃস্বনে । মত্ত মোগল রক্তপাগল "দীন দীন” গরজনে ।