পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৮০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


३१b” চয়নিক অসীম সে চাহে সীমার নিবিড় সঙ্গ, সীমা চায় হোতে অসীমের মাঝে হারা । প্রলয়ে স্বজনে না জানি এ কার যুক্তি, ভাব হতে রূপে অবিরাম যাওয়া-আসা, বন্ধ ফিরিছে খুজিয়া আপন মুক্তি, মুক্তি মাগিছে সাধনের মাঝে বাস । (* পৌষ, ১৩৩৯ ) —উৎসর্গ অতীত কথা কও, কথা কও, অনাদি অতীত, অনস্ত রাতে কেন চেয়ে বসে রও । কথা কও, কথা কও ৷ যুগযুগান্ত ঢালে তার কথা তোমার সাগর-তলে, কত জীবনের কত ধারা এসে মিশায় তোমার জলে । সেথ এসে তার স্রোত নাহি আর, কলকল ভাষা নীরব তাহার,— তরঙ্গচীন ভীষণ মোন, তুমি তারে কোথা লণ্ড । হে অতীত, তুমি হৃদয়ে আমার কথা কও, কথা কও ৷ কথা কও, কথা কওঁ । স্তব্ধ অতীত, হে গোপনচারী, অচেতন তুমি নও,— কথা কেন নাহি কও । তব সঞ্চার শুনেছি আমার মর্মের.মাঝখানে, কত দিবসের কত সঞ্চয় রেখে যাও মোর প্রাণে । হে অতীত, তুমি ভুবনে ভুবনে কাজ ক’রে যা ৪ গোপনে গোপনে,