পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৮৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(* চয়নিক হিমাদ্রি হে নিস্তব্ধ গিরিরাজ, অভ্রভেদী তোমার সংগীত তরঙ্গিয়া চলিয়াছে অমুদাত্ত উদাত্ত স্বরিত প্রভাতের দ্বার হতে সন্ধ্যার পশ্চিম নীড়-পানে দুর্গম দুরুহ পথে কী জানি কী বাণীর সন্ধানে । দুঃসাধ্য উচ্ছ্বাস তব শেষ প্রাস্তে উঠি’ আপনার সহসা মুহূতে যেন হারায়ে ফেলেছে কণ্ঠ তার, ভুলিয়া গিয়াছে সব স্বর,—সামগীত শবহার নিয়ত চাহিয়া শূন্যে বরষিছে নিঝরিণী-ধারা । হে গিরি, যৌবন তব যে-দুর্দম অগ্নিতাপ-বেগে আপনারে উৎসারিয়া মরিতে চাহিয়াছিল মেঘে— সে-তাপ হারায়ে গেছে, সে-প্রচণ্ড গতি অবসান, নিরুদ্দেশ যাত্র তব হয়ে গেছে প্রাচীন পাষাণ । পেয়েছ আপন সীমা, তাই আজি মৌন শাস্ত হিয়া সীমা-বিহীনের মাঝে আপনারে দিয়েছ সপিয়া । শ্রাবণ, ১৩১০ ) মৃত্যু-মাধুরী তুমি মোর জীবনের মাঝে মিশায়েছ মৃত্যুর মাধুরী। চির-বিদায়ের আভা দিয়া রাঙায়ে গিয়েছ মোর হিয়া, একে গেছ সব ভাবনায় স্বর্যাস্তের বয়ন-চাতুরী । &br電 —উৎসর্গ ।