পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

১৩

চয়নিকা

১৩

             চয়নিকা                  ১৩

তুই তো আমার বন্দী অভাগী, বাধিয়াছি কারাগারে,

প্রাণের বাঁধন দিয়েছি প্রাণেতে দেখি কে খুলিতে পারে।

জগৎ মাঝারে যেথায় বেড়াবি, যেথায় বসিবি, েথায় দাড়াবি, বসন্তে শীতে, দিবসে নিশীখে, সাথে সাথে তোর থাকিবে বাজিতে কঠিন কামনা চির শৃঙ্খল চরণ জড়ায়ে ধরে, একবার তোরে দেখেছি ধখন কেমনে এড়াবি মোরে | চাও নাহি চাও, ডাকো নাহি ডাকো, কাছেতে আমার থাকে। নাই থাকো, যাব সাথে সাথে ববো পায় পায়, রূবো গায় গায় যিশ্রি। এ বিষাঁদ ঘোর, এ আধার মুখঃ এই নৈরাশ, এই ভাঙা বুক, ভাঙা বাচ্যের মতন বাঁজিবে সাথে সাথে দিবানিশি । নিত্য কালের সঙ্গী আমি যে আমি-যে রে তোর ছায়া কিবা সে-রোদনে, কিবা সে হাসিতে, দেখিতে পাইবি কখনো পাশেতে, কতু সম্মুখে, কতু পশ্চাতে, আমার আধার কায়!।

১৩