পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৯৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२४२ চয়নিক ঐ দেখে মা বর্ষ এল ঘনঘটায় ঘিরে', বিজুলি ধায় একে বেঁকে আকাশ চিরে চিরে । দেবতা যখন ডেকে ওঠে,—থরখরিয়ে কেঁপে ভয় করতেই ভালবাসি তোমায় বুকে চেপে । ঝুপবুপিয়ে বৃষ্টি যখন বঁাশের বনে পড়ে কথা শুনতে ভালবাসি বসে কোণের ঘরে । ঐ দেখো মা জানলা দিয়ে আসে জলের ছাট, বল গো আমায় কোথায় আছে তেপান্তরের মাঠ । কোন সাগরের তীরে মাগে। কোন পাহাড়ের পারে, কোন রাজাদের দেশে মাগো কোন নদীটির ধারে । কোনোখানে আল বাধা তার নাই ডাহিনে বায়ে ? পথ দিয়ে তার সন্ধ্যাবেলায় পৌছে না কেউ গায়ে ? সারাদিন কি ধু ধু করে শুকনে ঘাসের জমি । একটি গাছে থাকে শুধু ব্যাঙ্গমা-বেঙ্গমি ? সেখান দিয়ে কাঠকুড়ানি যায় না নিয়ে কাঠ ? বল গে| আমায় কোথায় আছে তেপাস্তরের মাঠ ॥ এমনিতরে মেঘ করেছে সারা আকাশ বোপে ; রাজপুত্তর যাচ্ছে মাঠে একলা ঘোড়ায় চেপে । গজমতির মালাটি তার বুকের পরে নাচে, রাজকন্যা কোথায় আছে খোজ পেলে কার কাছে । মেঘে যখন ঝিলিক মারে আকাশের এক কোণে । দুয়োরানী-মায়ের কথা পড়ে না তার মনে ? দুখিনী মা গোয়াল-ঘরে দিচ্ছে এখন বাট, রাজপুত্তর চলে-যে কোন তেপান্তরের মাঠ।