পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

১৪

চয়নিকা

১৪

১৪ চয়নিকা

গভীর নিশীথে, একাকী যখন বসিয়া মলিন প্রাণে চমকি উঠিয়া দেখিবি তরাসে আমিও রয়েছি বসে তোর পাশে চেয়ে তোর মুখ পানে। যে-দিকেই তুই ফিরাৰি বয়ান, সেই দিকে আমি ফিরাব নয়ানঃ যেদিকে চাহিবি, আকাশে আমার আঁধার মুরতি আকা, মকলি পড়িবে আমার আড়ালে, জগৎ পড়িবে ঢাকা । ছূর্ভাবনার মতন নিম্নত, তোমারে রৃহিব ঘিরে, দিবস রাত্রি এ মুখ দেখিব তোমার অক্র-নীরে। যেন রে অকুল সাগর মাঝারে ডূবেছে জগংতরী ; তারি মাঝে শুধু মোরা ছুটি প্রাণী, রয়েছি জড়ায়ে তোর থাহুখা নি, যুঝিস ছাড়াতে ছাড়িব মা তবু, মহাসমুদ্র "পরি। এ অন্ককাঁর মরুময় নিশা, আমার পরান হারায়েছে দিশা, অনন্ত ক্ষুধা অনন্ত তৃষা করিতেছে হাহাকার, আজিকে যখন পেয়েছি রে তোরে, এ চির যাঁমিনী ছাড়িব কী ক'রে!