পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চয়নিক মাকে আমার পড়ে না মনে । শুধু যখন বসি গিয়ে শোবার ঘরের কোণে, জানলা থেকে তাকাই দূরে নীল আকাশের দিকে মনে হয়, মা আমার পানে চাইছে অনিমিখে । কোলের পরে ধ'রে কবে দেখত আমায় চেয়ে, সেই চাউনি রেখে গেছে সারা আকাশ ছেয়ে ॥ ( ৯ আশ্বিন, ১৩২৮ ) –শিশু ভোলানাথ বাণী-বিনিময় মা, যদি তুই আকাশ হতিস, আমি চাপার গাছ, তোর সাথে মোর বিনি-কথায় হোত কথার নাচ । তোর হাওয়া মোর ডালে ডালে কেবল থেকে থেকে কত রকম নাচন দিয়ে আমায় যেত ডেকে । “মা” ব’লে তার সাড় দেব কথা কোথায় পাই, পাতায় পাতায় সাড়া আমার নেচে উঠত তাই । তোর আলো মোর শিশির-ফোটায় আমার কানে কানে টলমলিয়ে কী বলত যে ঝলমলানির গানে । আমি তখন ফুটিয়ে দিতেম আমার যত কুঁড়ি, কথা কইতে গিয়ে তারা নাচন দিত জুড়ি । উড়ো গাছের ছায়াটি তোর কোথায় থেকে এসে আমার ছায়ায় ঘনিয়ে উঠে কোথায় যেত ভেসে । সেই হোত তোর বাদল বেলার রূপকথাটির মতো ; রাজপুত্তর ঘর ছেড়ে যায় পেরিয়ে রাজ্য কত ;