পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৮৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চয়নিক 亨 &b"為 সহস্ত্রের বন্যাম্রোতে জন্ম হতে মৃত্যুর আঁধারে চলে যাই ভেসে । নিজেরে হারায়ে ফেলি অম্পষ্টের প্রচ্ছন্ন, পাথারে কোন নিরুদ্দেশে । নামহীন দীপ্তিহীন তৃপ্তিহীন আত্ম-বিস্মৃতির তমসার মাঝে কোথা হতে অকস্মাৎ করে মোরে খুজিয়া বাহির তাহা বুঝি না যে । তব কণ্ঠে মোর নাম যেই শুনি গান গেয়ে উঠি “আছি, আমি আছি ।” সেই আপনার গানে লুপ্তির কুয়াশা ফেলে টুটি', বঁচি, আমি বাচি । তুমি মোরে চাও যবে, অব্যক্তের অথ্যাত আবাসে আলো ওঠে জ'লে, 喂 অসাড়ের সাড়া জাগে, নিশ্চল তুষার গ’লে আসে , নৃত্য-কলরোলে । নিঃশব্দ চরণে উষা নিপিলের সুপ্তির কুয়ারে দাড়ায় একাকী, রক্ত-অবগুণ্ঠনের অন্তরালে নাম ধরি কারে চলে যায় ডাকি । অমনি প্রভাত তা’র বীণ হাতে বাহিরিয়া আসে, শূন্ত ভরে গানে, ঐশ্বর্য ছড়ায়ে দেয় মুক্ত হস্তে আকাশে আকাশে, ক্লাস্তি নাহি জানে । 母 কোন জ্যোতিময়ী হোথা অমরাবতীর বাতায়নে রচিতেছে গান অালোকের বর্ণে বর্ণে, নির্নিমেষ উদ্দীপ্ত নয়নে । করিছে আহবান ।