পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ध्ञनेिक 8&t প্রত্যাগত দূরে গিয়েছিলে চলি’, বসন্তের আনন্দ ভাণ্ডার তখনে হয়নি নিঃস্ব । আমার বরণ পুষ্পহার তখনো অমান ছিল ললাটে তোমার। হে অধীর, কোন অলিখিত লিপি দক্ষিণের উদভ্ৰাস্ত সমীর এনেছিল চিত্তে তব । তুমি গেলে বাশি লয়ে হাতে, ফিরে দেখো নাই চেয়ে আমি বসে আপন বীণাতে বাধিতেছিলাম স্বর গুঞ্জরিয়া বসস্ত পঞ্চমে । আমার অঙ্গন তলে আলো আর ছায়ার সংগমে কম্পমান আম্রতরু করেছিল চাঞ্চল্য বিস্তার সৌরভ বিহবল শুক্লরাতে । সেই কুঞ্জ গৃহদ্বার এতকাল মুক্ত ছিল । প্রতিদিন মোর দেহলিতে অণকিয়াছে আলিপনা। প্রতি সন্ধ্যা বরণডালিতে গন্ধতৈলে জালায়েছি দীপ । আজি কতকাল পরে যাত্রা তব হোলো অবসান । হেথা ফিরিবার তরে হেথা হতে গিয়েছিলে । হে পথিক, ছিল এ-লিখন আমারে আড়াল ক’রে আমারে করিবে অন্বেষণ । স্থদুরের পথ দিয়ে নিকটেরে লাভ করিবারে আহবান লভিয়াছিলে সখা । আমার প্রাঙ্গণ স্বারে যে-পথ করিলে শুরু সে-পথের এখানেই শেষ । হে বন্ধু, কোরো না লজ্জা, মোর মনে নাই ক্ষোভ লেশ, নাই অভিমান তাপ । করিব না ভৎসনা তোমায়, গভীর বিচ্ছেদ আজি ভরিয়াছি অসীম ক্ষমায় । আমি আজি নবতর বধূ, আজি শুভদৃষ্টি তব বিরহ গুণ্ঠনতলে দেখে যেন মোরে অভিনব