পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চয়নিক 88念 অাদরে থাক আপন উপাসিক-মণ্ডলীতে ইতিমধ্যে মালতী পাস করুক এম, এ, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে, গণিতে হোক প্রথম, তোমার কলমের এক আঁচড়ে । কিন্তু ঐখানেই যদি থামে। তোমার সাহিত্য-সম্রাট নামে পড়বে কলঙ্ক । আমার দশা যাই হোক খাটো কোরো না তোমার কল্পনা । তুমি তো কৃপণ নও বিধাতার মতো । মেয়েটাকে দাও পাঠিয়ে যুরোপে । সেখানে যারা জ্ঞানী যারা বিদ্বান যারা বীর, যারা কবি যারা শিল্পী যারা রাজা, দল বেঁধে আস্থক ওর চারিদিকে । জ্যোতিবিদের মতো আবিষ্কার করুক ওকে, শুধু বিদুষী ব’লে নয়, নারী ব’লে । ওর মধ্যে যে বিশ্ববিজয়ী জাদু আছে ধরা পড়ক তার রহস্ত, মূঢ়ের দেশে নয়, যে দেশে আছে সমজ দার, আছে দরদী, আছে ইংরেজ, জর্মান, ফরাসি । মালতীর সম্মানের জন্য সভা ডাকা হোক না,— বড়ো বড়ো নামজাদার সভা । , মনে করা যাক সেখানে বর্ষণ হচ্ছে মুষলধারে চাটুবাক, মাঝখান দিয়ে সে চলেছে অবহেলায়— ঢেউয়ের উপর দিয়ে যেন পালের নৌকো। ওর চোখ দেখে ওরা করছে কানাকানি, সবাই বলছে, ভারতবর্ষের সজল মেঘ আর উজ্জল রৌত্র মিলেছে ওর মোহিনী দৃষ্টিতে। ९ॐ