পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


$ग्नमेिकं 8 ۹۵ মায়াবিষ্ট নিবিড় সেই স্তব্ধ ক্ষণে —তার নাম করব না— সবে সে চুল বেঁধেছে, পরেছে আসমানি রঙের শাড়ি, খোলা ছাদে গান গাইছে একা । আমি দাড়িয়ে ছিলেম পিছনে ও হয়তো জানে না, কিংবা হয়তো জানে ॥ ওর গানে বলছে সিন্ধু কাফির স্বরে— —চলে যাবি এই যদি তোর মনে থাকে ডাকব না ফিরে ডাকব না, ডাকি নে তো সকালবেলার শুকতারাকে — শুনতে শুনতে স'রে গেল সংসারের ব্যাবহারিক আচ্ছাদনটা, যেন কুঁড়ি থেকে পূর্ণ হয়ে ফুটে বেরোলো অগোচরের অপরূপ প্রকাশ ; তার লঘু গন্ধ ছড়িয়ে পড়ল আকাশে ; অপ্রাপণীয়ের সে দীর্ঘনিঃশ্বাস, {} দুরূহ দুরাশার সে অম্লচ্চারিত ভাষ৷ একদা মৃত্যুশোকের বেদমন্ত্র তুলে ধরেছে বিশ্বের আবরণ, বলেছে— পৃথিবীর ধূলি মধুময় । সেই সুরে আমার মন বললে,— সংগীতময় ধরার ধূলি । আমার মন বললে,— মৃত্যু, ওগো মধুময় মৃত্যু, তুমি আমায় নিয়ে চলেছ লোকাস্তরে গানের পাখায় ॥