পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৭২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


848 छघ्ननिक আমি ওকে দেখলেম— \* যেন নিকষবরন ঘাটে সন্ধ্যার কালো অরুণবরন পা-দুখানি ডুবিয়ে বসে আছে অঙ্গরী, অকুল সরোবরে স্বরের ঢেউ উঠেছে মৃদ্ধমুগ্ধ, আমার বুকের কাপনে কাপন-লাগা হাওয়া ওকে স্পর্শ করছে ঘিরে ঘিরে ॥ আমি ওকে দেখলেম, যেন আলো-নেবা বাসরঘরে নববধূ, আসন্ন প্রত্যাশার নিবিড়তায় দেহের সমস্ত শিরা স্পন্দিত । আকাশে ধ্রুবতারার অনিমেষ দৃষ্টি, বাতাসে সাহান রাগিণীর করুণা ৷ আমি ওকে দেখলেম ও যেন ফিরে গিয়েছে পূর্বজন্মে চেনা অচেনার অস্পষ্টতায় । সে যুগের পালানো বাণী ধরবে ব’লে ঘুরিয়ে ফেলছে গানের জাল, স্বরের ছোওয়া দিয়ে খুঁজে খুজে ফিরছে হারানো পরিচয়কে ॥ সমুখে ছাদ ছাড়িয়ে উঠেছে বাদামগাছের মাথা, উপরে উঠল কৃষ্ণচতুর্থীর চাদ । ডাকলেম নাম ধ’রে । তীক্ষ বেগে উঠে দাড়াল সে, ভ্ৰকুট ক'রে বললে, আমার দিকে ফিরে,— "७ कैो अक्लोग्न কেন এলে লুকিয়ে।”