পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


क्लङ्गत्रिको মাঠের পরে মাঠ মাঠের শেষে স্বদুর গ্রামখানি আকাশে মেশে । to এধারে পুরাতন শু্যামল তালবন সঘন সারি দিয়ে দাড়ায়ে ঘেসে । বাধের জল-রেখা ঝলসে স্বায়ু দেখা, জটলা করে তীরে রাখাল এসে । চলেছে পথখানি কোথায় নাহি জানি, কে জানে কত শত সূতন দেশে । হায়রে রাজধানী পাবাণ কায় । বিরাট মুঠিতলে চাপিছে দৃঢ়বলে, ব্যাকুল বালিকারে নাহিকো মায়া । কোথা সে খোলা মাঠ, উদার পথ ঘাট, পাখির গান কই, বনের ছায়া । কে যেন চারিদিকে দাড়িয়ে জাছে ; খুলিতে নারি মন শুনিবে পাছে। হেথায় বৃথা কাদা, দেয়ালে পেয়ে ৰাধা কাদন ফিরে আসে জাপন কাছে । আমার আঁখিজল কেহ না বোঝে । জবাক হয়ে সবে কারণ খোজে । “কিছুতে নাহি তোষ, সে-ও তো মহাদোষ, গ্রাম্য বালিকার স্বভাব ও-যে । * স্বজন প্রতিবেশী এভ-যে মেশামেশি, ও কেন কোণে ব’সে নয়ন বোজে ।” কেছ-ৰা দেখে মুখ কেহ-বা দেহ, কেহ-ব। ভালো বলে, বলে না কেছ ।