পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চয়নিকা আমার আকাঙ্ক্ষণসম এমন আকুল, এমন সকল-বাড়া, এমন অকুল, এমন প্রবল, বিশ্বে কিছু আছে আর ” এত বলি", দর্পভরে করে সে প্রচার “যেতে নাহি দিব ।”—তখনি দেখিতে পায় শুষ্ক তুচ্ছ ধুলিসম উড়ে চলে যায় একটি নিঃশ্বাসে তার আদরের ধন,— অ শ্রীজলে ভেসে যায় দুইটি নয়ন, ছিন্নমূল তরুসম পড়ে পৃথ্বীতলে হতগব । নতশির —তবু প্রেম বলে, “সত্য-ভঙ্গ হবে না বিধির । আমি তার পেয়েছি স্বাক্ষর-দেওয়া মহা অঙ্গীকার চির-অধিকার-লিপি ” তাই স্ফীতবুকে সৰ শক্তি মরণের মুখের সম্মুখে দাড়াইয়া স্বকুমার ক্ষীণ ততুলত। বলে, “মৃতু্য তুমি নাই –হেন গর্বকথা । মৃত্যু হাসে বসি’ । মরণ-পীড়িত সেই চিরজীবী প্রেম অfচ্ছন্ন করেছে এই অনস্ত সংসার, বিষগ্ন-নয়ন-’পরে অশ্রুবাম্পসম, ব্যাকুল আশঙ্কাভরে চির-কম্পমান । আশাহীন শ্রান্ত আশ। টানিয়া রেখেছে এক বিষাদ-কুয়াশা বিশ্বময় । আজি যেন পড়িছে নয়নে, দুখানি অবোধ বাহু বিফল বাধনে জড়ায়ে পড়িয়া আছে নিখিলেরে ঘিরে’, স্তন্ধ সকাতর । চঞ্চল স্রোতের নীরে প’ড়ে আছে একখানি অচঞ্চল ছায়া,— অশ্রুবৃষ্টিভরা কোন মেঘের সে মায়া । , , ዓ›