পাতা:চিঠিপত্র (ঊনবিংশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২০৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বই ‘কলিকাল’। সদ্য প্রকাশিত বই দুখানি সজনীকান্ত রবীন্দ্রনাথের নিকট প্রেরণ করেছিলেন। কবির অভিমত জানার অভিপ্রায়ে। ২ চিঠিতে রবীন্দ্রনাথ “অক্টোবরের আরম্ভে পাহাড়ে পালাবার” কথা লিখেছিলেন। কিন্তু বিকল দেহ ও মানসিক চঞ্চলতার কারণে কোনো ভাবেই আর কলকাতায় থাকতে না পেরে, সেপ্টেম্বরেই তিনি পর্বতাভিমুখে যাত্রা করেন। শান্তিনিকেতনে সকলের বাধা অগ্রাহ্য করে রবীন্দ্রনাথ ১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৪০ সুধাকান্ত রায়চৌধুরীকে সঙ্গে নিয়ে কলকাতায় আসেন। সেখানে ডা. নীলরতন সরকার ও ডা. বিধানচন্দ্র রায় কবিকে ভালোভাবে পরীক্ষা করেন। এবং রবীন্দ্রনাথের শারীরিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে র্তারা তাকে পাহাড় অভিমুখে যাত্রা করতে নিষেধ করেন। কিন্তু ডাক্তারদের সকল নিষেধ উপেক্ষা করে ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৪০, বৃহস্পতিবার রাত্ৰেই, সুধাকান্ত রায়চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে রবীন্দ্রনাথ কালিম্পঙ রওনা হয়েছিলেন। এবং ২৯ সেপ্টেম্বর ১৯৪০ নিদারুণ অসুস্থ অবস্থায় তাকে সেখান থেকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়। (দ্র. ক. রবীন্দ্রজীবনী ৪, পৃ. ২৪৯-২৫২ ; খ. মংপুতে রবীন্দ্রনাথ, পৃ. ১৮৭-২০০ ) পত্র- ৪২ ১ বৈশাখ, ১৩৪৮ ‘গল্পসল্প’ পুস্তকাকারে প্রকাশিত হয়। (দ্র. রবীন্দ্রজীবনী ৪, পৃ. ২৬৯-৭১) অধ্যাপক জগদীশ ভট্টাচার্য এই প্রসঙ্গে লিখেছেন—গল্পসল্প, “প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই একখণ্ড সজনীকান্তের কাছে পাঠিয়ে কবি তার মতামত চাইলেন। ‘গল্পসল্প সজনীকান্তের খুব ভাল লেগেছিল। দেশে তিনি একটি প্রবন্ধও লিখেছিলেন।’ (দ্র, ‘রবীন্দ্রনাথ ও সজনীকান্ত’, (ما لا د .2 সজনীকান্ত একটি পত্ৰযোগে কবিকে তার এই গ্রন্থটি ভালোলাগার কথা জানান। রবীন্দ্রনাথ পত্রোত্তরে ২৮/৫/৪ ১ তারিখে এই চিঠিটি লেখেন। > ケミ