পাতা:চিঠিপত্র (ঊনবিংশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রস্তাবে সজনীকান্তের বিশেষ সমর্থন ছিল না। তাই তিনি এই পত্ৰযোগে চিঠির ওপর গ্রহণ-বর্জন-পরিবর্তন ঘটিয়ে অত্যাচারে বিরত হতে রবীন্দ্রনাথকে অনুরোধ করেছিলেন। পত্র- ১ ১ চিঠির উপরাংশে বদিকে কোণে লাল কালিতে “file" শব্দটি লেখা আছে। চিঠির নীচে একটি নোট পাওয়া যায়— : “মৌখিক স্থির / মেদিনীপুর যাওয়ার কথা / ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে কিম্বা নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে / অর্থাৎ মাননীয় মন্ত্রী মহাশয় ফিরে যাবার পর। স্বাক্ষরের SKRC / [Sudhakanta Roychowdhury?] 25 SfR* IGITĀ 10/11/39 ১ মংপু থেকে ১ ১/১০/৩৯ তারিখে রবীন্দ্রনাথের লেখা চিঠির প্রাপ্তি সংবাদ দিয়েছেন সজনীকান্ত। (দ্র, রবীন্দ্রনাথের পত্র-২০) ২ মেদিনীপুরে বিদ্যাসাগর স্মৃতিমন্দির প্রতিষ্ঠার উদ্যোক্তা সমিতির করা। সজনীকান্তের উপর তারা দায়িত্ব দিয়েছিলেন–রবীন্দ্রনাথকে এই ক্ষেত্রে রাজি করিয়ে মেদিনীপুরে উপস্থিত করা অবধি। মংপু থেকে রবীন্দ্রনাথ কলকাতায় নামলে, সজনীকান্ত তার সঙ্গে সাক্ষাতে এই সম্বন্ধে আলোচনার অভিপ্রায় জানিয়েছিলেন এই চিঠির মাধ্যমে। ৩ ১৩৪৬ কার্তিক, “শনিবারের চিঠি’তে “রবীন্দ্র রচনাপঞ্জীর প্রথম কিস্তি প্রকাশিত হয়েছিল। তারই একটি কপি সজনীকান্ত রবীন্দ্রনাথের কাছে পাঠান, ‘রচনাপঞ্জী সম্বন্ধে তার অভিমত জানার অভিপ্রায়ে। ৪ সেইসময়ে সজনীকান্তের দপ্তরে রবীন্দ্রনাথের বাল্য ও কৈশোরের নামী ও বেনামী রচনাকে কেন্দ্র করে নানাবিধ প্রশ্ন জমা হয়ে উঠেছিল। রবীন্দ্রনাথ কলকাতায় এলে সজনীকান্ত নিজের প্রশ্নের মীমাংসা করার অভিপ্রায়ে পত্রশেষে জানতে চেয়েছেন যে কবি কবে নাগাদ কলকাতায় আসবেন। পত্র- ১২ এই পত্রটি বিশ্বভারতী, রবীন্দ্রভবনের অভিলেখাগারের সংগ্রহে নেই। পত্রটি ‘আত্মস্মৃতি’তে প্রকাশিত হয়। বর্তমান গ্রন্থের জন্যে এই পত্রটি ‘আত্মস্মৃতি” থেকে গৃহীত হয়েছে। (দ্র, ‘আত্মস্মৃতি’, পৃ. ৫৩৩-৩৪) ১ ৯৬