পাতা:চিঠিপত্র (চতুর্থ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শাস্তিনিকেতন | মরিস জগদানন্দ এবং সন্তোষ আজি ভোরে কলকাতায় গেছেন— অতএব তুই যে যন্ত্রটা চেয়েছিস্ সেটার সন্ধান করতে পারলুম না। যদি সেটাকে কোনোখানে আস্ত দেখতে পাই তাহলে তোদের পাঠিয়ে দেব । চাদের কলাগুলো সম্বন্ধে পরিস্কার ধারণা জন্মানে শক্ত এবং পৃথিবীর সঙ্গে সূর্যোর অবস্থাগত সম্বন্ধ অনুসারে ঋতুর ভেদ কি রকম করে হয় সেটাও কেবল ছবি দেখে বুঝিয়ে দেওয়া কঠিন । নগেন কাল বুধবারে বড়দিদিকে নিয়ে তোদের ওখানে যাত্র করবে লিখেছে। এ চিঠি পাবার পূর্বেই তোদের সভা জমে উঠেছে সন্দেহ নেই। ও জায়গাটা বড়দিদির বোধ হয় ভালই লাগবে । তামার সেই ছাতের ঘরটা তাকে দিস তাহলে তিনি নিরিবিলি থাকৃতে পারবেন। ললিতাকে দেখবার জন্যে আজ হেমলতা বোমা কলকাতায় রওনা হলেন । কমল অনেকদিন পরে তার সর্থী দুর্গাকে পেয়ে মনের আনন্দে আছে। কালিমোহনের স্ত্রী মনোরমাও তাদের সখি-সমিতির সভ্য, বিপিনের বেীও বিশিষ্ট সভ্যের মধ্যে। লাবণ্যের মেয়েটি বেশ সুন্দর দেখতে হয়েছে। বেচারা অসুখে