পাতা:চিঠিপত্র (ত্রয়োদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৮৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পত্র ৩৯। জাতিভেদের প্রশ্ন তুলিয়া আপনি বড়দাদাকে বিপদে দ্বিজেন্দ্রনাথও অনুরূপভাবে মনোরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়কে লেখেন, “আমি তাহার প্রত্যুত্তর লিখিতে আরম্ভ করিয়াছিলাম ; কিন্তু লিখিতে লিখিতে এত details আসিয়া পড়িল যে, তাহা শেষ করিতে অনেক সময় এবং পুথির পাতা ব্যয় করিতে হয় . আমি রবীন্দ্রনাথকে প্রশ্নের উত্তর লিখিতে বলিয়াছি, তিনি তাহাতে সন্মত হইয়াছেন।” দ্বিজেন্দ্রনাথ এর পর সংক্ষেপে র্তার মতামত জানান । ‘স্মৃতি' [ ১৯৪১] গ্রন্থের প্রথমে এই পত্রটি মুদ্রিত। কতকটা প্রতিশ্রুতি দিলেও রবীন্দ্রনাথ এই প্রবন্ধ লিখতে পারেন নি, কিন্তু অগ্রহায়ণ সংখ্যা বঙ্গদর্শনে’ ‘ততঃ কিম প্রবন্ধে চতুরাশ্রমের বর্তমানকালে উপযোগিতার কথা আলোচনা করেছেন । পত্র ৩৯ ৷ “চট্টগ্রাম এবং ব্ৰহ্মদেশের মধ্যে মনস্থির করিতে হুইবে—" মনোরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়ের কর্মসংস্থানের জন্ত রৰীন্দ্রনাথের আগ্রহের কথা এখানে জানা যাচ্ছে । পত্র ৪• । "ছাত্ৰ কয়টির মধ্যে দু'জনকে মনের মতন পাইবেন— বাকি তিনটিকে কোনোমতে লগি ঠেলিয়া পার করিতে হইবে..” উল্লিখিত ছাত্ৰকয়টি সম্ভবত অরুণচন্দ্র সেন, উপেন্দ্রচন্দ্র ভট্টাচার্ষ, জ্বজিতকুমার চক্রৰতী, অরবিন্দমোহন বস্থ ও যোগেন্দ্রলাল গঙ্গোপাধ্যায়। এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন ঔপ্রশান্তকুমার পাল ‘রবিজীবনী’, পঞ্চম খণ্ডে ( বৈশাখ ১৩৯৭ ), পৃ. ৩৫১-৫২ । “স্বত্বে কৃতে ন সিধ্যতি কোইত্র দোৰ;—” ঘটকপর-রচিত 'নীতিসার ১৩-সংখ্যক শোকের (উদ্ভোগিনং পুরুষসিংহ ২৬২