পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১১২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিকটের ব্যাপার সম্বন্ধে অনেক সময়ে ক্ষিপ্রহস্তে কৰ্ত্তব্যবুদ্ধি চালনার আশু প্রয়োজন ঘটে— সে অবস্থায় মানুষের ক্ষোভের মাত্রাও বেশি হয় । সে অবস্থায় মান্ত ব্যক্তিকে বা বন্ধুকেও বিনা বিচারে বা স্বল্প প্রমাণে কঠিন কথা বলা সম্ভবপর হয । সেই কারণে যদুনাথ সরকার মশায়ের পত্র নিয়ে আপনার ইংরেজি বা বাংলা বা উভয় কাগজেই যদি অপ্রিয় আলোচনা ও হত তাহলে সেটা আক্ষেপের বিষয় হলেও বিস্ময়ের বিষয় হ’ত না । কিন্তু দূরের ব্যাপার সম্বন্ধে কৰ্ত্তব্যবুদ্ধির অসংযত উত্তেজন স্বাভাবিক নয় বলেই অন্তত মান্ত বা বন্ধুবাক্তির প্রতি আমরা ধৈর্য্য প্রত্যাশা করি । তার ব্যতিক্রম ঘটলে সেটা অশোভন হয় । - ব সঙ্গে আমার নিকট পরিচয় হয় নি ; তার সঙ্গে সম্বন্ধ আপনাব সম্বন্ধ অমুসরণ ক’রেই । কিন্তু ... আত্মীয়ের মত নিকটে এসেছিল । . . . আমার কাছ থেকে অজস্র স্নেহ পেয়েছে । মডারন রিভিয়ুতে ও তার পনেরো দিন পরে প্রবাসীতে সৰ্ব্বজনগোচর যে অবমাননা আমার বিরুদ্ধে প্রকাশ করা হয়েছে তারা যে তা স্বীকার করে নিতে পারলে এটাই সব চেয়ে আমাকে বেদন দিয়েছে । অবশ্য কৰ্ত্তব্যের দাবী আত্মীয়তার দাবীর চেয়ে বেশি । কিন্তু এ ক্ষেত্রে সেই দাবী কি এত অত্যন্ত বেশি ছিল যে, ভাষায় অপরাধীর প্রতি সামান্য সৌজন্ত্যেরও সংযম রক্ষা করা অসাধ্য হয়েছিল । আপনি Forwardএর পারাগ্রাফের উল্লেখ করেছেন । সুধীন্দ্র বসুর প্রেরিত সংবাদমালার পরে সে প্যারাগ্রাফ গ্রথিত । >\°