পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১২৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সদৃশণ। আমার মধ্যে একটা কোনো গুরুতর অভাব নিশ্চয়ই আছে । আমার বিশ্বাস, সেই অভাবট হচ্চে, আমার হৃদ্যতপ্রকাশের প্রাচুর্যোর অভাব । শিশুকাল থেকে অত্যন্ত একলা ছিলুম, লোকসঙ্গ না পাওয়াতে লোকব্যবহারের শক্তি সম্ভবত আমার আড়ষ্ট হয়ে গেছে । এই জন্যেই এ জীবনে বন্ধুসমাজে তামার বাস করা ঘটে নি । শিশুকালের মতো আজো বস্তুত আমি একলাই আছি । সেটাতে আমার অনেক ক্ষতিও হয়েচে, তাছাড়া একটা স্বাভাবিক আনন্দের বরাদ তামার ভাগে চিরদিন কম পড়ে গেছে। যখন বয়স হয়েছে পরিচিত লোকদের মধ্যে যাদেব আমি কোনো না কোনো কারণে শ্রদ্ধা করতে পেবেছি তাদেরই আমি মনে মনে বন্ধু বলে গণ্য করেছি। তাদের ও সকলকে অামি রক্ষা করতে পারি নি । এদের সংখ্যা অত্যন্ত কম । জগদীশ, আপনি, যদুবাবু, ও রামেন্দ্রসুন্দর ত্রিবেদী, এই চাবজনের নাম মনে ] পড়চে । হঠাৎ এক সময়ে অববিন্দকে নিয়ে অন্তত বাইবের দিক থেকে জগদীশ আমার কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েছিলেন । আমার সে একটা সুদীর্ঘ ও সুগভীর দুঃখের ঘটনা । তার পরে হঠাৎ এক সময়ে, বিনামেঘে বজ্রাঘাতের মতো, যদুবাবুর কাছ থেকে একটা অত্যন্ত অবজ্ঞাপূর্ণ নিষ্ঠুর চিঠি পাই, সে কথাও আপনি জানেন । সেই অবধি তার সঙ্গে ব্যবহার করতে আমি সাহস করি নি । তিনিও সম্ভবত আমার কৰ্ম্মনীতি ও কৰ্ম্মরীতির প্রতি শ্রদ্ধা হারিয়েছেন । S e a