পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ৰণী মানুষটি বলচে, “প্রাণের দ্বারা যন্ত্রের হাত থেকে মুক্তি পেতে হবে, মুক্তি দিতে হবে।” যন্ত্রী হচ্চে বিভূতি, মন্ত্রী হচ্চে ধনঞ্জয়, আর মানুষ হচ্চে অভিজিৎ । অনেক বকুলুম, এখন থামি । আজ ২১ বৈশাখ বৃহস্পতিবার, আগামী সোমবার ২৫শে বৈশাখে আমার জন্মদিন । তোমরা দূর থেকে সেইদিনের কথা স্মরণ করে আমাকে চিন্তা করেচ, আমি ও সেইদিনে তোমার কথা স্মরণ করব । এবার বৃষ্টিহীন খরতর রৌদ্রের মধ্যে নববর্ষ দেখা দিয়েচে—আমার সেই বলাকার নববর্ষই মনে পড়চে । অামার পক্ষে সৰ্ব্বতোভাবে সেই নববর্ষই এসেচে—রুদ্রই বুঝি পথ দেখাবেন । আমার দেশ অামাকে ত্যাগ করেচে, অতএৰ সকল দেশের উপরেই আমার অধিকার বুঝি পাকা হল । অভিজিৎ উত্তরকটেব সিংহাসন ত্যাগ করেছিল তার চেয়ে বড় রাজ্যের মধ্যে মুক্ত হবার জন্যে,– তেমনি দেশে আমার যে সম্মানের বন্ধন ছিল সে আমাকে মাতৃগর্ভের নাড়ির মতই ত্যাগ করচে মুক্ত ধরণীকে লাভ করব বলেই । রাণাকে ও তাব স্ত্রীকে মামার সাদর অভিবাদন জানিয়ে । ইতি তোমাদের শ্রীরবীন্দ্রনাথ ঠাকুর Фa e &