পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


could be cut whereby sincere thought might flow freely between us unobstructed by mutual jealousy and suspicion and unimpeded by self-interest and racial pride, then a reconciliation might be bridged OᏙe↑ . ‘স্পেক্টেটরে একটা লেখা'—৭ জুন (১৯৩০) স্পেক্টেটর পত্রিকায় **śnto ‘India—An Appeal to Idealism' ca-Iss প্রকাশিত হয় । এই সময়ে ভারতে যে সরকারী সম্ব{স ও দমননীতি চালানো হয় তারই পবিপ্রেক্ষিতে ইংলণ্ডের গণতন্ত্রী মা তুষদের কাছে কবির এই আবেদন । ইংলণ্ড গণতন্থের গৌরবময় আদশের ধারক । পরদেশের প্রতি আচরণে ও ইংলণ্ড যেন এই অদশের পরিচয় অক্ষুন্ন রাখে —কবির আবেদনের মূল বক্তব্য ছিল এই ৷ এখানে প্রসঙ্গত যুরোপকে সমালোচনা করে তিনি বলেন ... “To-day Europe in the illumination of her intellect has brought her science and also her spirit of service. But unfortuna lety she has not come to Asia to reveal the generosity of her civilization, but to seek an unlimited field for her pride and power, “trying to make these things eternal.’ ভারতের রাজনৈতিক আন্দোলন প্রসঙ্গে তার বক্তব্য : ‘...the fact glimmers out that our people, with a pious determination, has kept unshaken the difficult ideal which they have accepted from their great leader Mahatma Gandhi who—the Spirit of Buddha 8為bア