পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৩৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


matist (1948) pp. 268-269. “Supreme Man'–ass মূলত মানুষের ধর্মের দ্বিতীয় অধ্যায় অবলম্বনে রচিত । ইংরেজি অতুবাদে কবিকে সাহায্য করেন অধ্যাপক হুমায়ুন কবীর। এটি সংশোধিতরূপে অন্ধ, বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘Man' বক্তৃতামালার দ্বিতীয় বক্তৃতারূপে কবি কতৃক পঠিত হয় ৯ ডিসেম্বর ১৯৩৩ সালে । মডার্ণ রিভিয়ুতে এর প্রকাশ অগস্ট ১৯৩৪-এ । পত্র ১২২ ৷ ইংরেজিতে বক্তৃতা—সম্ভবত কাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন—ভাষণ রচনা | পত্র ১২৩ ৷ ডিসেম্বর ১৯৩৪ সালে নিউ বলিংটন আর্ট গ্যালারীতে ইণ্ডিয়া সোসাইটির উদ্যোগে ভারতীয় ললিতকলার একটি প্রদর্শনী হয়। ওই-দেশীয় শিল্পসমালোচকগণ ‘ম্যাঞ্চেষ্টর গারডিয়ান', ‘বর্লিংটন মাগাজিন’, ‘সানডে টাইমস্’ ‘ মণিং পোস্ট’ প্রভৃতি পত্রিকায় এই প্রদর্শনীর বিশেষ প্রশংসা করেন । কিন্তু ঐ প্রদর্শনী দেখে অমিয় চক্রবর্তীর মনে হয়েছিল যে প্রদর্শিত ছবিগুলির মান কোনক্রমেই প্রশংসাযোগ্য নয়, কেননা তা ভারতবর্ষের জীবনের রূপকে যথার্থরূপে প্রতিফলিত করতে পারে নি । এ বিষয়ে ১২ ডিসেম্বর ১৯৩৪-এ তিনি রবীন্দ্রনাথকে এক পত্র লেখেন । ঐ পত্রে প্রসঙ্গত তিনি লেখেন “আমরা যেন বিদেশী কাগজের দুচারটে স্তুতি মস্তব্য বা এমন কি ছবি বিক্ৰী থেকে আসল কথা না ভুলি । যারা শ্রদ্ধাবশত চুপ করে থাকেন বা disappointment প্রকাশ করেন এদেশে তারাই বন্ধু। কেননা যার প্রশংসা করেন ভারতীয়ত্বের বা আমাদের কোনো অতি উচ্চ অমানবীয় শিল্প (r o\)