পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৩৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ব্যক্তিত্ববাদী অসামাজিক বাঙালীর হাতের পরিচয় পী ওয়া যায় । বিশ্ববিদ্যালয়ই হউক আর করপোরেশনই হউক তাহ মোটামুটি এক একজন মহা শক্তিশালী বাঙালীর কীৰ্ত্তি । আগুতোষ, চিত্তরঞ্জন অথবা রবীন্দ্রনাথ পর্যন্ত সকলেই চরম ব্যক্তিত্ববাদের উপাসক । তাহারা যে-সকল প্রতিষ্ঠান গডিয়া তুলিয়াছেন তাহ অসংখ্য লোকের বহুমূখী ব্যক্তিত্বের সম্মিলিত প্রকাশ নয়। অর্থাং তাহা কোনও সমাজের দ্বারা গড জিনিষ নয়। যে তিনট প্রতিষ্ঠানের নাম করা হইয়াছে, তাহারা এক স্তভাবে ব্যক্তিবিশেষের স্বষ্টি । লেখকের আশঙ্কা ‘তাহীদের পরে তঁ}হাদের অপেক্ষা নী রেস লোকের হাতে পড়িলে যে ঐ সকল প্রতিষ্ঠানের দ্বারা দেশের প্রভূত ক্ষতি হইবে না, তাহ কে বলিতে পারে ? পত্র ১২৬ । ‘তখনি একট1. পাঠিয়েছি”—এটি শেষ সপ্তক কাব্যগ্রন্থের প্রথম কবিতাটির রবীন্দ্রনাথকৃত অসুবাদ ‘ Today I gain you truly'—মডার্ণ রিভিয়ু, জুলাই ১৯৩৫-এ মুদ্রত । কবিতাটির নীচে স্থানকালের নির্দেশ –চন্দননগর ২৬, ৬, ৩t । পত্র ১২৮ । ‘কাৰ্ত্তিক সংখ্যার...উপায় নেই।' কাভিকের প্রবাসীতে ‘বিস্ময়' এবং ‘মাটিতে আলোতে’—এ দুট কবি তাই মুদ্রিত হয়েছে। প্রথমটি ২৫ অগস্ট, দ্বিতীয়টি ৪ মে ১৯৩৫-এ রচিত । প্রেরিত স্বরলিপি ‘মনে হল যেন পেরিয়ে এলাম’ গানটির । এটি প্রবাসী কার্তিক ১৩৪২-এ মুদ্রিত । পত্র ১২৯ ৷ ‘সাহিত্য অধ্যাপক • • •করেছেন " অধ্যাপক সুবোধচন্দ্র সেনগুপ্ত তার ‘রবীন্দ্রনাথ’ গ্রন্থে ( ১৩৪১, পৃ ২৩২ ) এই মত ব্যক্ত করেন । © e to