পাতা:চিঠিপত্র (প্রথম খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিয়ে হত সেইখানি ছিল বরসজ্জার উপকরণ। নিজেরই বাড়িতে পশ্চিমের বারান্দা ঘুরে রবীন্দ্রনাথ বিয়ে করতে এলেন অন্দরমহলে— স্ত্রী-আচারের সরঞ্জাম যেখানে সাজানো । বরসজ্জার শালখানি গায়ে জড়ানো রবীন্দ্রনাথ এসে দাড়ালেন পিড়ির উপর । নতুন কাকিমার আত্মীয়া র্যাকে সবাই ডাকতেন ‘বড় গাঙ্গুলির স্ত্রী’ বলে— রবীন্দ্রনাথকে বরণ করলেন তিনি। র্তার পরনে ছিল একখানি কালে রঙের বেনারসী জরির ডুরে । বিয়ের সময় কাকিম ছিলেন খুব রোগা । গ্রামের বালিকা, শহুরে হাবভাব কিছুই জানতেন না। কী মানুষের সঙ্গে তার বিয়ে হচ্ছে...কত বড় আশ্চর্ষ মানুষ, কাকে তিনি পেলেন, এর কোনো ধারণাই তার ছিল না । কনে এনে সাত পাক ঘুরানো হল— শেষে বরকনে দালানে চললেন সম্প্রদানস্থলে । বাড়ির অবিবাহিত বড়ো মেয়েগুলি সঙ্গে সঙ্গে চলল । আমিও জুটে গেলুম তাদের সঙ্গে । দালানের এক ধারে বসবার জায়গা ছিল আমাদের । দেখলুম সেখানে বসে স্বচক্ষে কাকিমার সম্প্রদান । সম্প্রদানের পর বরকনে এসে বাসরে বসলেন । রবীন্দ্রনাথের বউ এলে তার থাকবার জন্যে একটি ঘর নিদিষ্ট করা ছিল আগে থেকেই। বাসর বসলো সেই ঘরেই। বাসরে বসেই রবীন্দ্রনাথ দুষ্টুমি আরম্ভ করলেন। ভাড়-কুলো খেলা আরম্ভ হল, ভঁাড়ের চালগুলি ঢালা-ভরাই হল ভাড়খেলা। রবীন্দ্রনাথ ভাড় খেলার বদলে ভাড়গুলো উপুড় করে দিতে লাগলেন ধরে ধরে । তার ছোটো কাকিমা ত্রিপুরাসুন্দরী বলে উঠলেন, ওকি করিস রবি ? এই বুঝি তোর ভাড়খেলা ? ভাড়গুলো সব উণ্টেপাপ্টে দিচ্ছিস কেন ? রবীন্দ্রনাথের নিজের বাড়ি— নিজেই বর । তাকে শ্বশুরবাড়ি যেতে হয় নি। তাই তার লজ্জা সংকোচের কারণ ছিল না। রবীন্দ্রনাথ বললেন, জানো না কাকিম।– সব যে উলট পালট হয়ে যাচ্ছে— কাজেই আমি ভাড়গুলো উলটে দিচ্ছি । >Wうbr