পাতা:চিঠিপত্র (প্রথম খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৯৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৭. রথীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাবা ছিলেন তার নিজের ঘরে লেখাপড়া নিয়ে— মা ছিলেন তার ছেলেমেয়েদের নিয়ে সংসারের কাজে । সেইজন্য ছেলেবেলার কথা মনে করতে গেলে মায়ের কথাই বেশি মনে পড়ে । তার নিজের পাচটি ছেলেমেয়ে, কিন্তু তার সংসার ছিল সুবৃহৎ । বাড়ির ছোটোবউ হলে কি হয়, জোড়সাকো-বাড়ির তিনিই প্রকৃত গৃহিণী ছিলেন । কাকিমার কাছে সকলেই ছুটে আসত তাদের সুখদুঃখের কথা বলতে । সকলের প্রতি তার সমদুষ্টি ছিল, তিনি ছিলেন সকলের দুঃখে দুঃখী, সকলের সুখে সুখী । তাকে কোনোদিন কর্তৃত্ব করতে হয় নি, ভালোবাসা দিয়ে সকলের মন হরণ করেছিলেন । সেইজন্য ছোটোর। যেমন র্তাকে ভালোবাসত, বড়োরা তেমনি স্নেহ করতেন । সকলের মধ্যে বলুদাদা তার বিশেষ প্রিয়পাত্র ছিলেন। মা কখনো ইস্কুলে লেখাপড়া শেখেন নি— বাবার কাছেই যা শিক্ষা পেয়েছিলেন । অল্পবয়স থেকেই বলুদাদা সাহিত্যরসে মাতোয়ারা ছিলেন । তিনি সংস্কৃত বাংলা ইংরেজিতে যখন যে-কোনো বই পড়তেন, কাকিমণকে সেগুলি একবার পড়ে না শোনালে তার তৃপ্তি হত না । বলুদাদার কাছ থেকে শুনে শুনে মায়ের এই তিন ভাষার সাহিত্যের সঙ্গে বেশ ভালো করেই পরিচয় হয়েছিল । বলুদাদা আমাকে নিজের ছোটো ভাইয়ের মতো খুব স্নেহ করতেন । তিনি ছিলেন আমার বালকবয়সের আদর্শ পুরুষ। সব সময়েই তার পিছনে পিছনে ঘুরতুম। মা স্নান করিয়ে দিতেন, কিন্তু প্রসাধন করতে যে তুম বলুদাদার কাছে . আমাদের তেতলার ঘরের সামনে মস্তবড়ো ছাদ । তার মাঝখানটা আবার উচু প্ল্যাটফর্মের মতো— যেন বাড়ির খোলা বৈঠকখান । সমস্তদিন ধরে এখানে চলত ছেলেমেয়েদের হুটোপাটি— তাদের শিশুকণ্ঠের কলরব মুখরিত করে রাখত চার পাশ । রোদ পড়ে গেলেই চাকররা জাজিম তাকিয়া পেতে দিয়ে যেত মাঝখানে উচু জায়গাটায় । মেয়েদের তখন Σ Φ Φ.