পাতা:চিঠিপত্র (প্রথম খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


এর পরের হস্তায় চিঠি ফঁাক যায় তা হলে কিছু মনে কোরোনা । জাহাজে চিঠি লেখা বিশেষ শক্ত নয়— কিন্তু ডাঙ্গায় উঠে যখন ঘুরে বেড়াব, কখন কোথায় থাকুব তার ঠিকানা নেই– তখন তুই একটা চিঠি বাদ যেতেও পারে। আমরা, ধরতে গেলে পশু থেকে যুরোপে পৌঁচেছি। মাঝে মাঝে দূর থেকে যুরোপের ডাঙ্গা দেখতে পাওয়া যায়। আমাদের জাহাজট এখন ডান দিকে গ্রীস আর বা দিকে একটা দ্বীপের মাঝখান দিয়ে চলেছে। দ্বীপটা খুব কাছে দেখাচ্চে– কতকগুলো পাহাড়, তার মাঝে মাঝে বাড়ি, এক জায়গায় খুব একটা মস্ত সহর – দূরবীন দিয়ে তার বাড়িগুলো বেশ স্পষ্ট দেখতে পেলুম —সমুদ্রের ঠিক ধারেই নীল পাহাড়ের কোলের মধ্যে শাদা সহরটি বেশ দেখাচ্চে । তোমার দেখতে ইচ্ছে করচেনা ছুটুকি ? তোমাকেও একদিন এই পথ দিয়ে আসতে হবে তা জান ? তা মনে করে তোমার খুসি হয় না ? যা কখনো স্বপ্নেও মনে কর নি সেই সমস্ত দেখতে পাবে। ছুদিন থেকে বেশ একটু ঠাণ্ড পড়ে আসচে– খুব বেশি নয় – কিন্তু যখন ডেকে বসে থাকি, এবং জোরে বাতাস দেয় তখন একটু শীত-শীত করে । অল্পস্বল্প গরম কাপড় পরতে আরম্ভ করেছি। আজকাল রাত্তিরে “ডেকে” শোওয়াটাও ছেড়ে দিতে হয়েচে । জাহাজের ছাতে শুয়ে লোকেনের দাতের গোড়া ফুলে ভারি অস্থির করে তুলেছিল। আমরা যে সময়ে এসেছি নিতান্ত অল্প শীত পাব— দাৰ্জিলিঙ্গে যেরকম শীত ছিল তার চেয়ে ঢের কম । ছাড়বার সময়-সময় একটু শীত হবে হয়ত। আমি অনেকগুলো wo