পাতা:চেনা দায় - প্রিয়নাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/৩৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

চেনা দায়।

৩৯


দিগকে প্রতারিত করিতে সাহসী হইতে পারেন না। যখন আমি নিজে সমস্ত অলঙ্কারের মধ্য হইতে যে কোন একখানি অলঙ্কার গ্রহণ করিতেছি, তখন উহা পিত্তলের অলঙ্কার হইবারই সম্ভাবনা। সুতরাং যখন উহা আমরা যাচাইয়া দেখিব, তখন সমস্ত কথাই বাহির হইয়া পড়িবে। এখন বুঝিতে পারিলেন, আমি কেন নিজ হস্তে সমস্ত গহনার মধ্য হইতে যে কোন একখানি গহনা বাহির করিয়া লইলাম?

 আমি। এ অতি উত্তম উপায়। কারণ, সমস্ত পিত্তলের গহনার মধ্যে যদি একখানি বা দুইখানি সোণার গহনা রাখা থাকে, এবং একজন অপরিচিত লোক তাহার মধ্য হইতে তাহার ইচ্ছামত যে কোন একখানি অলঙ্কার বাহির করিয়া লয়, তাহার হস্তে যে সেই সুবর্ণের অলঙ্কারই আসিয়া পড়িবে, তাহারই বা অর্থ কি?

 বছিরুদ্দিন। তাহা ত হইল। অলঙ্কার যাচাইয়াও দেখিব; কিন্তু এখন টাকার সংগ্রহ হইবে কি প্রকারে?

 আমি। আমারও সেই ভাবনা।

 বছিরুদ্দিন। যখন এ কার্য্যে হস্তক্ষেপ করিয়াছি, তখন একরূপ উপায় করিতেই হইবে।

 আমি। কি উপায় করিতে চাহ বল?

 বছিরুদ্দিন। আপনি পাঁচ হাজার টাকা অপেক্ষা আর কিছু অধিক দিতে পারিবেন না কি?

 আমি। মোটে আমার সম্বল পাঁচ হাজার টাকা। একথা আমি পূর্ব্বেই তোমাকে বলিয়াছি, আর তাহা হইতে এক সহস্র মুদ্রা আমি আমার নিকট রাখিতে চাই। তাহাও তুমি