পাতা:জয়তু নেতাজী.djvu/১৭৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নেতাজী రిసె স্বার্থসাধন, এমন করিয়া মানুষকে জাগানো যায় না—মানুষে মামুষে বিরোধ দূর করিয়া এক বিশাল মুক্ত-স্বাধীন রাষ্ট্রের স্থাপনাও সম্ভব নয় । তাঙ্গা কেমন করিয়া সম্ভব ? নেতাজী সুভাষচন্দ্রই তাহা প্রথম হইতে বুঝিয়াছিলেন, কিন্তু ঐ কংগ্রেসকে কিছুতেই বুঝাইতে পারেন নাই—সেই দিব্যদৃষ্টির জন্ম যে মহা প্রাণতার প্রয়োজন তাহ। একমাত্র ঐ একটি পুরুষেরই ছিল । তিনি ঐ সমস্যার জদ্য কিছুমাত্র উদ্বিগ্ন হন নাই ; তিনি জানিতেন যে, ভারতবাসীকে সৰ্ব্বস্বপণের জন্য আহবান করিয়া সংগ্রামে নিযুক্ত করলেই সকল বিরোধ সকল ভেদ আপনিষ্ট মিলাইয়া যাইবে বদ্ধজলেষ্ট রোগ-বীজাণু বৃদ্ধি পায়, প্রবল স্রোত বহাইতে পারিলে সে সকল আপনিই নষ্ট হয । তিনি বিশ্বাস করিতেন— عمیر \ When the bugle is sounded, all those who hunger for freedom will naturally fall in line and resume freedom's march, 1egardless of their religious faith and denomination....When people become “comrades-in arms” in the struggle for liberty, a new espirit d' corps will develop—and along with it a new outlook, a new perspective, a new vision.... It will then be easy for them to solve many of the questions which today appear difficult to solve.” [ ভাবাৰ্থ :-যাহার স্বাধীনতা লাভের গুপ্ত আকুল হইয়াছে, যুদ্ধের ডাক শুনিলেই তাহারা জাতি-ধৰ্ম্ম-ভেদ জুলিয়া পরম্পরের পাশে জাসিয়া দাড়াইৰে; যুদ্ধযাত্রাকালে সেনাবাহিনীর মধ্যে সকল ব্যবধান লোপ পায় ।