পাতা:জয়তু নেতাজী.djvu/১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ه لومبن ভারতীয় ধৰ্ম্মের সুস্থ ও প্রাণময় প্রেরণ উছাতে নাই ; উছ প্রাণধৰ্ম্মী, গতিধৰ্ম্মী নয় ; উছার মূলে আছে সেই মধ্যযুগীয় mysticism— জীবন-সত্যকে অগ্রাহ করিয়া একটা অবাস্তব ভাব-সাধনার মোছ, গীত। যাহাকে "ক্লৈব্য বলিয়াছেন সেই কৈব্যেবই জয়গান। একমাত্র মহাবাষ্ট্রের বালগঙ্গাধর তিলক বাংলার এই নবজাগরণকে শ্রদ্ধার চক্ষে দেখিয়ছিলেন, তিনি এই ধর্মের সমর্থন কবিয়াছিলেন । তাতার গীতাভাৰ্য্য—সেই ‘গী তা-রহস্ত' নামক বিশাল গ্রন্থে, তিনি হিন্দুধর্থের ৰে ব্যাথ্যা করিয়াছেন তাহাতেও সেই ধৰ্ম্মকে—"নিবৃত্তিপব’ নয়— ‘প্রবৃত্তিপর বলিয়া প্রমাণিত কবিয়াছেন ; তিনি শ্ৰীকৃষ্ণের ‘তক্ষাৎ যুধ্যস্ব ভারত এই উপদেশকে মধ্যযুগীয় ভক্তি-বৈরাগ্যের দুর্ব্যাখ্যা হইতে মুক্ত করিয়াছেন । বাংলাদেশেই সৰ্ব্বপ্রথম রাজনৈতিক বিক্ষোভ আরম্ভ হয়, তাহার ৰূলে ছিল বঙ্কিম-বিবেকানন্দের বাণী । সেই নবধর্মাবেগের আঘাতে আদি-কংগ্রেস ভাঙিতে আরম্ভ করে ; সেই সময়েষ্ট বাঙালীর সেই ধর্থমন্ত্ৰ বীজক্সপে ভারতের সর্বত্র ছড়াইয় পড়ে, এবং ক্ষেত্রবিশেষে তাছ। অঙ্কুরিত হয়। তখন হইতেই ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম প্রকৃতপক্ষে আরম্ভ হয় । ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষও রীতিমত চঞ্চল হইয়া উঠে ; এবং তখন হইতেই একদিকে যতরকমের তথাকথিত reforms এবং অপরদিকে কঠোর দমন-নীতি তাছাদের রাজ্যরক্ষার প্রধান উপায় হইয়া আছে । প্রথম মহাযুদ্ধের পর, পৃথিবীর সকল দেশের মত, এদেশেও ৰিষম অবস্থfস্তর ও অৰসাদ ঘটে । সেই লগ্নে গান্ধীজী তাহার নুতন ধর্ম ও নূতন কৰ্থনীতি লইয়া ভারতের রাজনীতি-ক্ষেত্রে আবিভূত হইলেন ; সেই দারুণ অবসাদ ও নিরাশ। তাছার নেতৃত্বের বড়ই অমুকুল হইয়াছিল, fêsa statforwa—‘The man of the moment' I cair