পাতা:জয়তু নেতাজী.djvu/১৮৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


〉8br জয়তু নেতাজী এই প্রবন্ধের, তথা গ্রন্থের উপসংহার করিব । এই গ্রস্থে, আমি যেখানে যত অপ্রিয় সত্যভাষণের পাপ করিয়াছি—লো" ব্যক্তি ও জন-বরেণ্য নেতার বিরুদ্ধ-সমালোচনা করিয়াছি, এবং সেই সমালোচনাতেও—মানুষ আমি—যে সকল তথ্য বা তত্ত্বের ভ্ৰম করিয়াfছ, সেই সকল পাপই, এক্ষণে নেতাজী-চরিতের পাবনী-ধারায় স্নান করিয়া ক্ষালন কবিতে পাৰিব । এখন আর কংগ্রেস নয়, জাতীয় স্বাধীনতা-সংগ্রাম নয়, এমন কি, আজাদ-হিন্দ-ফেজের অলৌকিক কীৰ্ত্তি-কাহিনীও নয়, এখন কেবল সেই পুরুষের প্রতি চাfতব, তাতার মহনীর চরিত্র ও মহত্তর আত্মার অমর মহিমা হৃদয়ঙ্গম কলিল । পৃথিবীর ইতিহাসে কত বড় বড় পুরুষেব আবির্ভাব হইয়াছে—মানবাত্মার কত বিভূতিই প্রকাশ পাইয়াছে ! কেহ ধৰ্ম্মে, কেহ রাষ্ট্রে, কেহ শিল্পে, কেহ সাfঠতো, কেহ রণাঙ্গনে, কেহ মানুষের চিন্তা রাজ্যে—মানবীয় প্রতিভাব, মানব-মহত্ত্বের বিজয়-কেতন উড্ডীন করিয়া এখনও ইতিহাসের ধারায় বিদ্যমান বহিয়াছেন । এষ্ট সকলের মধ্যে এক-একটি শক্তির বিকাশ আমরা দেখিয়াছি,—সকলের মধ্যে সকল শক্তিৰ বিকাশ দেখি নাই । এষ্টজম্বাই, ভারতবর্ষে র্যাহাদিগকে অবতার-কল্প পুরুষ বলা হয়—সেইরূপ পুরুষের মধ্যেও, মনীষী ৰঙ্কিমচন্দ্র একমাত্র ঐক্লককেই শ্রেষ্ঠ বলিয়া স্বীকার কবিয়া, দিলেন, তাহার ‘কৃষ্ণচরিত্রে তিনি সে-পক্ষে যথেষ্ট যুক্তি ও চিণ্ডার সমাবেশ করিয়াছেন । আমি অবশু ੱਥਾਂ 裔罗