পাতা:জয়তু নেতাজী.djvu/২৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিশিষ্ট ఫిలిమ বিনষ্ট হইত। তাই গান্ধী কিছুমাত্র ভুল করেন নাই , সুভাষচন্দ্রই তাছার সেই অতিপ্রায় বুঝিয়াও বুঝিতে চাছেন নাই । সেই অতিপ্রায় কি তাহা ক্রমেই স্পষ্ট হইতে স্পষ্টতর হইয়া উঠিতেছিল । সুভাষচজ গান্ধীর নীতি ও কৰ্ম্ম-পদ্ধতি দেখিয়া বারৰার বিস্ময় ৰোধ করিয়াছেন । গান্ধী ইংরেজের সহিত সন্মুখ-যুদ্ধের অভিনয় মাত্র করিতেন, কখনও সত্যকার যুদ্ধে নামিতেন না ; জনগণকে সে বিষয়ে পূর্ণ-উষ্ঠত করিয়া তৎক্ষণাৎ একটি মন্ত্রের দ্বারা সেই যুদ্ধোপ্তম নিবারণ করিতেন, সব ঠাও। করিয়া দিতেন,—ইহা স্বভাষচন্দ্র লক্ষ্য করিয়াছেন, কিন্তু তাহার অর্থ স্পষ্ট করিরা প্রকাশ করিতে পারেন নাই । বারদোলির যুদ্ধোন্তম কেমন করিয়া ‘চৌরিচৌরা’র অজুহাতে নিবারিত হইয়াছিল তাহা ভারতবাসী বোধ হয় এখনও ভুলে নাই ; “শুরুর ইচ্ছা পূর্ণ হউক বলিয়া সকলেই নিঃশ্বাস ফেলিয়াছিল। এমনই এক একটা বেতাল দুঃসাহসের ভঙ্গি কবিয়া গান্ধী প্রতিবারেই কেমন তাল সামলাইতেন, সুভাষচন্দ্র তাছা অতিশয় দুঃখের সহিত উল্লেখ করিয়াছেন। এইরূপ তাল-সামলানে। শেষবারে বড় বিসদৃশ হইয়া উঠিয়ছিল । দ্বিতীয় গোল-টেবিল বৈঠক হইতে যখন তিনি হতাশ্বাস, এমন কি, হত-সন্মান হইয়। ফিরিলেন, এবং লর্ড উইলিংডনের সেই অগ্নি-মূৰ্ত্তি দেখিলেন, তখন ব্রিটিশকে ভয় দেখাইবার, ও জনগণের নিকটে মুখ-রক্ষা করিবfর জন্ত তিনি যে কৌশল অৰলম্বন করিয়াছিলেন, তাহার মত হাস্যকর ও শোকোদ্দীপক কিছু পূৰ্ব্বে কখনো করিতে হয় লাই । তিনি পুনরায় সেই বারদোলি-অস্ত্ৰ ত্যাগ করিলেন ; কিন্তু যুদ্ধ-ঘোষণার পরে যখন দেশের সর্বত্র সেই যুদ্ধ চলিতে লাগিল, এৰং একদিকে জনগণও হটিবে না, অপরদিকে গৰগঁমেন্টও তাহাদিগকে দমন করিতে কিছুমাত্র ক্লান্ড হুইতেছিল না, তখন গান্ধী প্রমাদ গণিলেন । এবার “চৌরিচৌরা” ছিল না, কাজেই একটি অভিলৰ > 8