পাতা:জয়তু নেতাজী.djvu/২৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ఎ &R জয়তু নেতাজী এখনও হয় নাই ; সেই পুরাতন ধর্শ্বভাব, অর্থাৎ অন্ধভক্তিই তাহাদের একমাত্র সম্বল। রাজনৈতিক সংগ্রামেও ধর্মগুরু এবং অন্ধভক্তি এই দুইয়ের বিষময় ফল ফলিতে আরম্ভ করিয়াছে,—বুদ্ধি, বিচার চিস্ত ও জ্ঞানকে সম্পূর্ণ নিৰ্ব্বাসিত করিয়াই জনগণকে ষে এক-নেতৃত্বের বন্ধনপাশে বদ্ধ করা হইয়াছিল, সেই বন্ধনই এখন স্বাধীনতারও বন্ধন হইয়া উঠিয়াছে । এ জাতি স্বাধীন হয় নাই—হয় নাই যে, সে জ্ঞানও নাই, কারণ, স্বাধীনতা যে কি বস্তু ত{হাই জানে না । দ্বিতীয় কারণ, নেতাজীর ব্যক্তি-মহিমা—তাহার বীর-কীৰ্ত্তি ও অপূৰ্ব্ব অষ্মোৎসর্গই তাহাদিগকে ভাবাকুল করিয়াছে ; নেতাজীর সেই আদর্শ বা মন্ত্র—তাহার সেই ব্ৰত—তাহারা এখনও ভালো করিয়া অৰধারণ করিতে পারে নাই । যাহাতে সিদ্ধিলাভের জন্ত তিনি সেই অমামুষিক তপশ্চরণ করিয়াছিলেন তাহা না বুঝিয়া, কেবল তাহারা তাহাকেই দেখিয়াছে, সেই কীৰ্ত্তিকলাপের রশ্মিচ্ছটায় তাহার মূল ব্রতটি আচ্ছন্ন হইয়া আছে । জনগণ যদি তাহার সেই মন্ত্র এবং সেই ব্রতটিকে বুঝিতে পারিত, তবে আজিকার এই স্বাধীনতালাতে তাহারা কৃতাৰ্থ হইত না : কাগুণ, তাহা হইলে ইহাও বুঝিতে পারিত যে, এইরূপ স্বাধীনতাকেই নেতাজী বড় ভয় করিয়াছিলেন। এই কথা যাহারা এখনও বুঝে নাই, যাহারা কেবল তাহার আত্মোৎসর্গেব সেই দিব্যাবদান দেখিয়া হৃদয়ের তাবাবেগ সম্বরণ করিতে পারে না, তাছারাই আজ এইরূপ চঞ্চল হইয়া উঠিয়াছে ; কিন্তু তাহারাই আবার,—যে মহা-বিপদ নিৰারণ করিবার জষ্ঠ নেতাজী প্রাণাত্তিক প্রয়াস করিয়াছিলেন,— সেই বিপদকেই মহাসম্পদ মনে করিয়া কৃতাৰ্থ হইয়াছে । ইহার মত পরিহাগ আর কি হইতে পারে ? লাজ পণ্ডিত জৰাহরলাল নেহেরুই ভারতের রাষ্ট্রনেতা,—লেই