পাতা:জয়তু নেতাজী.djvu/৪২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२ জয়তু নেতাজী আমি এই পুরুষ-যজ্ঞকেই—যাহা অনন্তকালে অনুষ্ঠিত হইতেছে—তাহাকেই, একালে আমাদের চক্ষের সম্মুখে অনুষ্ঠিত হইতে দেখিতেছি ; আমাদের কালেব আমাদের ভাষায় তাহার ব্যাখ্যাও অন্তরূপ, কিন্তু ভিতরের ঘটনা একই। অতএব উপরের নামকরণ দেখিয়া আপনাবা বিস্থিত হইবেন না। একালের ঋষি-কবিও সেই যজ্ঞের পুরুষ-সূক্ত রচনা করিয়াছেন, সেইরূপ দুইটি সূক্তই আমাকে এই প্রবন্ধরচনা-রূপ 'চাপলায়প্রণোদিত করিয়াছে। আমি সেই মুক্ত ছুইটি উদ্ধৃত করিয়া আধুনিক ভাবে ও আধুনিক ভাষায় তাহার কিছু ভাষ্য রচনা করিব, আপনারা পাঠ করিয়া পুণ্য সঞ্চয় করুন, আমার ভাগও আপনারাই গ্রহণ করুন। প্রথমে একটু ভূমিকা করি। মামুষেব ব্যক্তিগত জীবনেও যেমন, তেমনই এক একটা জাতির জীবনে এমন ঘটনা ঘটে, যাহা অতিশয় অপ্রত্যাশিত ও চমকপ্রদ , ব্যক্তির জীবনে ঘটিলে তাহার সংবাদ কেহ রাখে না, তাঙ্গ একটি ক্ষুদ্র গণ্ডির মধ্যেই শেষ হইয়া থাকে। নাটকে উপস্থাসে এইরূপ ঘটনাকেই আশ্ৰয করিয়া কবি-কল্পনা কিঞ্চিৎ স্কৃত্তি পায়, আমরা তেমন ঘটনাকে মানিয়া লই ; তেমন ঘটন। নিত্য না ঘটিলেও অসম্ভব বলিয়া মনে হয় না, একটা গভীরতর অর্থে তাহাকে বাস্তব বলিয়া স্বীকার করি, এবং কবির কল্পনা বা অন্ত দৃষ্টির প্রশংসা করি। কিন্তু সময়ে সময়ে ঐ কবিচিত্তকেই অপর একটি চেতনা আবিষ্ট করে—ব্যক্তি-জীবনের পরিবর্তে বৃহত্তর জীবন, জাতির বা মন্থন্ত-সাধারণের নিয়তি