পাতা:জয়তু নেতাজী.djvu/৭৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বামীজী ও নেতাজী එදා “এসো মহাকালাঁ ! প্রলয়ঙ্করী এসে মা ! যে জন ডরে ন দুঃথেরে ভাপবালিতে, নাচিতে যে পারে সর্ব জগৎ নাশিতে, মৃত্যুবে ধরি খায় তার মুখে চুমা,— তার কাছে আসে সৰ্ব্বনাশিল ম৷ ” বোধ হয় এই সময়েই তিনি বলিয়াছিলেন— Worship Death ! All else is vain. Yet this is not the coward’s love of death ; it is the welcome of the strong who has sounded everything to its depths, and knows there is no other alternative ’’ —এই বাণী কোন অবস্থায় কাহাব মুখেব বাণী ? ইহা কি অতিশয় বৰ্ত্তমানে, সারা ভাবস্তেব তথা বাংলার— আত্মত্রাণের মন্ত্র-বাণী নয় ? কি স্তু সে সময়েব সঙ্গ দারুণ যন্ত্রণার উপশমের জন্য স্বামীজী যে সান্তনাবাক্য খুজিয়া পাঠয়াছিলেন, তাহার মত ঢদাস অথচ করুণ আর কি হইতে পাৰে ? ইহার কয়েকদিন পরে হঠাৎ একদিন সন্ধ্যাকালে কতকগুলি ফুল হাতে লইয়া তিনি আবার দেখ দিলেন ( স্বামীজ একখানি পৃথক হাউস-বোটে থাকিতেন ; কোথায় কখন যাইতেন তাহা ও কেহ জানিত না ) ; কোন কথা না বলিয়। সেই ফুলগুলি সকলেব মাথায় স্পর্শ করাষ্টয়া শেষে এই বলিয়া মৌন ভঙ্গ কবিলেন—“আমি এই ফুলগুলি মার পায়ে দিয়াছিলাম”। কিছুক্ষণ আর কিছু কহিতে পারিলেন না, আর সকলেও স্তব্ধ হইয়া রহিল । অবশেষে অতি ধীরে শাস্তু কণ্ঠে বলিলেন, “দেশকে ভালবাস, দেশের জন্য সৰ্ব্বপ্রকার ම්