পাতা:জাপানে-পারস্যে-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৪২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
১৩২
জাপানে-পারস্যে

 বেলা যায়, রৌদ্র বেড়ে ওঠে; মােটর-চক্রোৎক্ষিপ্ত ধুলাে উড়িয়ে বাতাস বইছে, আমাদের শীতের হাওয়ার মতাে ঠাণ্ডা। কচিৎ এক এক জায়গায় দেখি তােরণওয়ালা মাটির ছােটো কেল্লা, সেখানে মােটর দাঁড় করিয়ে আমাদের অভ্যর্থনা জানান হয়। ডান দিগন্তে একটা পাহাড়ের চেহারা ফুটে উঠছে, যাত্রা আরম্ভে আকাশের ঘােলা নীলের মধ্যে এ পাহাড় অবগুণ্ঠিত ছিল।

 এই অঞ্চলটায় বাষ্‌ক্রি জাতের বাস, তাদের ভাষা তুর্কি। পূর্বতন রাজার আমলে এখানে তাদের বসতি পত্তন হয়। এদের ব্যবসা ছিল দস্যুবৃত্তি। নূতন আমলে এদের ঠাণ্ডা করা হচ্চে। শােনা গেল কিছুদিন আগে পথের মধ্যে এরা একটা সাঁকো ভেঙে রেখেছিল। মালবােঝাই মোটরবাস উলটে পড়তেই খুনজখম লুটপাট করে। এই ঘটনার পরে রাজা তাদের প্রধানের ছেলেকে জামিনস্বরূপে তেহেরানে নিয়ে রেখেছেন। শাস্তিটা কঠোর নয় অথচ কেজো। এই জাতের দলপতি শাক্‌রুল্লা খাঁ তাঁর বসতিগ্রাম থেকে এসে আমাদের অভিবাদন জানিয়ে গেলেন। আর কয়েক বছর আগে হলে এই অভিবাদনের ভাষা সম্পূর্ণ অন্যরকম হত যাকে বলা যেতে পারত মর্মগ্রাহী। বুশেয়ার থেকে বরাবর আমাদের গাড়ির আগে আগে আর একটি মােটরে বন্দুকধারী পাহারা চলেছে। প্রথমে মনে করেছিলুম বুঝিবা এটা রাজকায়দার বাহুল্য অলংকার, এখন বােধ হচ্ছে এর একটি জরুরী অর্থ থাকতেও পারে।

 মেটে রাস্তা ক্রমে নুড়ি-বিছানাে হয়ে এল। বােঝা যায় পাহাড়ের বুকে উঠছি। পথের প্রান্তে কোথাওবা গিরিনদী চলেছে পাথরের মধ্য দিয়ে পথ কেটে। কিন্তু তারা তাে লােকালয়ের ধাত্রীর কাজ করছে না। মানুষ কোথায়? মাঠে মাঝে মাঝে আকন্দ গাছ কুল গাছ উইলো,—মাঝে মাঝে গমের ক্ষেতে চাষের পরিচয় পাই কিন্তু চাষীর পরিচয় পাই নে।