পাতা:জাপানে-পারস্যে-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৯৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
১৮৮
জাপানে-পারস্যে

আশ্রয় পাওয়া গেল,—পপলার তরুসংঘের ফাঁকের ভিতর দিয়ে দেখা যাচ্ছে বরফের আঁচড়কাটা পাহাড়।

 তেহেরানে গরম পড়তে আরম্ভ করে ছিল, এখানে ঠাণ্ডা। সমুদ্রের উপরিতল থেকে এ শহর ছ হাজার ফুট উঁচু। এলভেন্দ পাহাড়ের পাদদেশে এর স্থান। একদা আফেমেনীয় সাম্রাজ্যের রাজধানী ছিল এইখানে। সেই রাজধানীর প্রাচীন নাম ইতিহাসবিখ্যাত একবাতানা আজ তার ধ্বংসাবশেষ প্রায় কিছু বাকি নেই।

 আহার ও বিশ্রামের পর বিকেলবেলা শহর দেখতে বেরলুম। প্রথমে আমাদের নিয়ে গেল, ঘন বনের মধ্য দিয়ে গলিপথ বেয়ে একটি পুরােনাে বড় ইমারতের সামনে। বললে, এর উপরের তলা থেকে চারিদিকের দৃশ্য অবারিত দেখতে পাওয়া যায়। আমার সঙ্গীরা দেখতে গেলেন কিন্তু আমার সাহস হল না। গাড়িতে বসে দেখতে লাগলুম একদল লােক এসেছে বনের ধারে চড়িভাতি করতে। মেয়েরাও তার মধ্যে আছে, তারা কালো চাদরে মােড়া কিন্তু দেখছি বাইরে বেরতে রাস্তায় ঘাটে বেড়াতে এদের সংকোচ নেই।

 আজ মহরমের ছুটি, সবাই ছুটি উপভােগ করতে বেরিয়েছে। অল্প কয়েক বছর আগে মহরমের ছুটি রক্তাক্ত হয়ে উঠত, আত্মপীড়নের তীব্র তায় মারা যেত কত লােক। বর্তমান রাজার আমলে ধীরে ধীরে তার তীব্রতা কমে আসছে।

 বনের ভিতর থেকে বেরিয়ে শহরে গেলেম। আজ দোকান-বাজার বন্ধ কিন্তু ছুটির দলের খুব ভিড়। পারস্যে এসে অবধি মানুষ কম দেখা। আমাদের অভ্যাস, তাই রাস্তায় এত লােক আমাদের চোখে নতুন লাগল। আরাে নতুন লাগল এই শহরটি। শহরের এমন চেহারা আর কোথাও দেখি নি। মাঝখান দিয়ে একটি অপ্রশস্ত খামখেয়ালী ঝরনা নানা