পাতা:জীবন-স্মৃতি - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাড়ির আবহাওয়া । b"○ অনেকদিন ধরিয়া গাথিয় গাথিয় পড়িতে পাইয়াছি, তেমন করিয়া পড়িবার সুযোগ আর কেহ পাইবে না । শ্ৰীযুক্ত সারদাচরণ মিত্র ও অক্ষয় সরকার মহাশয়ের প্রাচীনকাব্যসংগ্রহ সে সময়ে আমার কাছে একটি লোভের সামগ্ৰী হইয়াছিল। গুরুজনেরা ইহার গ্রাহক ছিলেন কিন্তু নিয়মিত পাঠক ছিলেন না। সুতরাং এগুলি জড় করিয়া আনিতে তামাকে বেশি কষ্ট পাইতে হইত না । বিদ্যাপতির দুৰ্ব্বোধ বিকৃত মৈথিলী পদগুলি অস্পষ্ট বলিয়াই বেশি করিয়া আমার মনোযোগ টানিত । আমি টাকার উপর নির্ভর না করিয়া নিজে বুঝিবার চেষ্টা করিতাম। বিশেষ কোনো দুরূহ শব্দ যেখানে যতবার ব্যবহৃত হইয়াছে সমস্ত আমি একটি ছোট বাধানো খাতায় নোট করিয়া রাখিতাম । ব্যাকরণের বিশেষত্বগুলিও অামার বুদ্ধিঅনুসারে যথাসাধ্য টুকিয় রাখিয়াছিলাম। বাড়ির আবহাওয়া । ছেলেবেলায় আমার একটা মস্ত স্থযোগ এই ছিল যে, বাড়িতে দিনরাত্রি সাহিত্যের হাওয়া বহিত । মনে পড়ে খুব যখন শিশু ছিলাম বারান্দার রেলিং ধরিয়া এক একদিন সন্ধ্যার সময় চুপ করিয়া দাড়াইয়া থাকিতাম। সম্মুখের বৈঠকখানা বাড়িতে আলে জুলিতেছে, লোক চলিতেছে, দ্বারে বড় বড় গাড়ি আসিয়া দাড়াইতেছে । কি হইতেছে ভাল বুঝিতাম না কেবল অন্ধকারে দাড়াইয়া সেই তালোকমালার দিকে তাকাইয়া থাকিতাম । মাঝখানে ব্যবধান যদিও বেশি ছিল না তবু সে আমার শিশুজগৎ হইতে বহুদূরের আলো । আমার খুড়তুত ভাই গণেন্দ্র দাদা তখন রামনারায়ণ তর্করত্নকে দিয়া নবনাটক লিখাইয়া বাড়িতে তাহার অভিনয় করাইতেছেন। সাহিত্য এবং ললিত কলায় র্তাহাদের উৎসাহের সীমা ছিল না। বাংলার আধুনিক যুগকে যেন তাহার সকল দিক দিয়াই উদ্বোধিত করিবার চেষ্টা করিতেছিলেন। বেশে ভূষায় কাব্যে গানে চিত্রে নাট্যে ধৰ্ম্মে স্বাদেশিকতায় সকল বিষয়েই র্তাহীদের মনে একটি সর্বাঙ্গসম্পূর্ণ জাতীয়তার আদর্শ জাগিয়া উঠিতেছিল। পৃথিবীর সকল